Skip to content

হাইব্রীড হঠাও; প্রসঙ্গ তারিক সলমন গ্রেফতার

ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

মনে পরে সেই ঘটনা, বঙ্গবন্ধুর বাবা মারা যাওয়ার পর সেই মোশতাক এমন ভাবে কান্না করতেছিল যে কোন ভাবেই সে থামছে না! পরবর্তিতে স্বয়ং বঙ্গবন্ধু তাকে শান্তনা দিয়ে তার কান্না থামান! তার কান্না দেখে মনে হয়েছে যেন বঙ্গবন্ধুর বাবা নয় মোশতাকের বাবাই মারা গিয়েছেন! আশা করি এই মীরজাফর মোশতাকের বাকি ঘটনা আর বলা লাগবে না?

UNO গ্রেফতারের মধ্য দিয়ে আজকে ঘটলো সেই ঘটনার পুনরাবৃত্তি!

"প্রধানমন্ত্রী বললেন, ক্লাশ ফাইভের ছেলে-মেয়েদের মধ্যে প্রতিযোগিতার আয়োজন করে এই অফিসার সুন্দর একটি কাজ করেছেন।এবং সেখানে যে ছবিটি আঁকা হয়েছে, সেটি আমার সামনেই আছে, আপনারা দেখতে পারেন। এবং এই ছবিটিতে বিকৃত করার মতো কিছু করা হয়নি। এটি রীতিমত পুরস্কার পাওয়ার যোগ্য। এই অফিসারটিও রীতিমত পুরস্কার পাওয়ার যোগ্য। আর সেখানে উল্টো আমরা তার সঙ্গে এই করেছি, এই বলে প্রধানমন্ত্রী তিরস্কার করলেন!

এই ঘটনা থেকে কি দেখলাম? বঙ্গবন্ধুর আপন কন্যার সেই ৫ম শ্রেনীর ছাত্রের আঁকা ছবি দেখে খুশি শুধু খুশিই নয় তাদের পুরুষ্কৃত করার কথাও বলেছেন! আর এদিকে সেই একই আঁকা ছবি দেখে শ্লা হাইব্রীডের বাচ্চা কাউয়া ছবি বিকৃত হয়েছে বলে মামলা করে UNO কে গ্রেফতার করায়! একেই বলে সেই মোশতাকের কান্না যা বরাবরই প্রমান করে মা'য়ের চেয়ে মাসির দরদ বেশী।

ওরা Tariq Salmon এর হাতে হাতকড়া পড়ায় নি, হাতকড়া পড়িয়েছে বাংলাদেশের হাতে!
হাতকড়া পড়িয়েছে ন্যায় বিচারের হাতে!

ওরা Tariq Salmon কে অপদস্ত করেনি,
ওরা অপদস্ত করেছে বঙ্গবন্ধুকে।।
ওরা অপদস্ত করেছে আমাদের জাতিস্বত্বাকে,
ওরা অপদস্ত করেছে আমাদের ৭১ কে,
ওরা অপদস্ত করেছে আমাদের চেতনাকে।
ওরা অবরুদ্ধ করে রাখতে চায় বাংলাকে,
ওরা অবরুদ্ধ করে রাখতে চায় মুজিবকে!!
ওরা হাইব্রিড, ওরাই কাউয়া।।

উক্ত ঘটনার সাথে সম্পৃক্ত সকল ব্যাক্তিদের আইন ও দলীয় ফোরাম অনুযায়ী কঠোর শাস্তি দিয়ে একজন সৎ নিষ্ঠাবান প্রজাতন্ত্রের কর্মীর সম্মান ফিরিয়ে দেওয়া হোক।

#হাইব্রীড_হঠাও


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

ভালো লিখেছেন

লেখকের মনের খায়েস...


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

ধন্যবাদ smile :) :-)

জয় বাংলা... জয় বঙ্গবন্ধু

glqxz9283 sfy39587p07