Skip to content

রাজনৈতিক সংঘাত বন্ধের স্থায়ী সমাধান

ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

আমাদের ত্রুটিপূর্ণ শাসন ব্যবস্থার ফলে প্রতি নির্বাচনের সময় রাজনৈতিক দল গুলোর মধ্যে সংঘাত শুরু হয়ে যায় । আগামীতে যাতে এরকম সংঘাত না হয় তার জন্য আমি দুই স্তরীয় এক শাসন পদ্ধতির খসড়া প্রস্তুত করেছি । আমার বিশ্বাস সকল পক্ষের কাছে এই নতুন শাসন পদ্ধতি গ্রহনযোগ্য হবে ।
দুই স্তরের শাসন ব্যবস্থার একটি হবে স্থায়ী সরকার যেটি রাষ্ট্রপতিকে প্রধান করে ''সুপ্রিম কাউন্সিল'' নামে হবে এই স্থায়ী সরকার অসংস্কারযোগ্য হবে । ও দ্বিতীয় স্তর হবে প্রধানমন্ত্রীকে প্রধান করে ৫ বছরেরজন্য অস্থায়ী দলীয় সরকার, যেমনটি বর্তমানে রয়েছে । ব্যাতিক্রম হবে শুধু দলীয় সরকারের কিছু দফতর সুপ্রিম কাউন্সিলের হাতে দিয়ে দিতে হবে । বিস্তারিত নিম্নে দেওয়া হলো ।

সুপ্রিম কাউন্সিল
১- পাঁচ বছরের জন্য রাষ্ট্রপতি মনোনিত হবেন যাঁর কোনো দলীয় পরিচয় থাকতে পারবে না । রাষ্ট্রপতির বয়স হতে হবে ৭০ বছর বা তারও অধিক । সুপ্রিম কোর্টের অবসর প্রাপ্ত বিচারপতি, সেনা কর্মকরতা, কবি-লেখক, অধ্যাপক, প্রাক্তন স্পিকার, কূটনৈতিক, অর্থনীতিবিদ, নির্দলীয় সরকারি কর্মকর্তা প্রমুখদের মধ্য থেকে রাষ্ট্রপতি মনোনিত করতে হবে । বর্তমান রাষ্ট্রপতির মেয়াদ পূর্ণহওয়ার পর নির্দলীয় রাষ্ট্রপতি নিয়োগ পাবেন ।
২- সুপ্রিম কাউন্সিলের ৩০ জন সদস্যের মধ্যে ১৫ জন নারী সদস্য থাকবে । যাঁদের চার জন অমুসলিম থাকবেন- একজন চাকমা বা বৌদ্ধ বাকি তিনজন হিন্দু সম্প্রদায়ের মধ্য থেক হতে হবে । এই সদস্যদের বয়স ৬৫ বা তার উর্ধ্বে হতে হবে । সমাজের নির্দলীয় গন্যমান্য ব্যাক্তিদের মধ্য থেকে সুপ্রিম কাউন্সিলের সদস্যদের মনোনিত করতে হবে । দলীয় সরকার দ্বারা পাশ করা আইনসহ সকল বিল সুপ্রিম কাউন্সিলে সর্ব সম্মতিক্রমে পাশ হলে পরে তা রাষ্ট্রপতি অনুমদন করবেন ।
৩- আইন মন্ত্রনালয়, প্রতিরক্ষা মন্ত্রনালয়, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়, নির্বাচন কমিশন, দুদক, বিটিভি ও বাংলাদেশ বেতার সুপ্রিম কাউন্সিলের নিয়ন্ত্রণে থাকবে ।
৪- আইন মন্ত্রণালয় সুপ্রিম কাউন্সিলের কাছে থাকলেও আইন প্রনয়নের অধিকার দলীয় সরকারে কাছেই থাকবে ।
৫- জাতীয় সংসদের প্রধান স্পিকার সুপ্রিম কাউন্সিলের নিয়ন্ত্রনে থাকবেন এবং স্পিকারকে রাষ্ট্রপতি মনোনিত করবেন ।
৬- দলীয় সরকারের মেয়াদ পূর্ণ হওয়ার পর রাষ্ট্রপতি জাতীয় সংসদ ভেঙে দিয়ে তিন মাসের মধ্যে নির্বাচন করাবেন । এই তিন মাস সুপ্রিম কাউন্সিল দেশ পরিচালনা করবে । তবে তিন মাসের মধ্যে দলীয় সরকারে কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে রাষ্ট্রপতি বাধ্য থাকবেন । যদি না করেন তাহলে তা হবে দণ্ডনীয় অপরাধ । সেই ক্ষেত্রে সুপ্রিম কোর্ট রাষ্ট্রপতিকে বরখাস্ত করে নতুন রাষ্ট্রপতি নিয়োগ করবেন এবং ক্ষমতাচ্যুত রাষ্ট্রপতি ও অন্যান্য দোষীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেবেন ।
৭- সুপ্রিম কাউন্সিলের কাজ হবে শুধু সরকারের ওপর নজর রাখা, দুর্নীতিবাজ মন্ত্রীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া দলীয় সরকারকে বিভিন্ন কাজের অনুমোদন দেওয়া ।
৯- সুপ্রিম কাউন্সিল ও সরকার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে জাতির জনক মাননতে বাধ্য থাকবে এবং সুপ্রিম কাউন্সিল ও দলীয় সরকার-এর সকল কার্যালয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি সকল ছবির উর্ধ্বে টানানো বাধ্যতামূলক করতে হবে । দেশের শান্তি ও জাতীয় ঐক্যের জন্য এই কাজটি আমাদের করতে হবে ।
১০- স্বাধীনতার ঘোষণা বঙ্গবন্ধু প্রথমে দিলেও মিডিয়াতে সরাসরি জিয়াউর রহমানই প্রথম দিয়েছিলেন তাই জিয়াউর রহমানকে স্বাধীনতার মিডিয়া ঘোষক হিসাবে স্বীকৃতি দিতে হবে । দেশের শান্তি ও জাতীয় ঐক্যের জন্য এই কাজটি আমাদের করতে হবে ।
১১- বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানকে নিয়ে কটুক্তি করা দণ্ডনীয় অপরাধ হবে । যাঁরা দেশের স্বাধীনতার জন্য এত সংগ্রাম করলেন তাঁদের বিরুদ্ধে কেন কটুক্তি হবে ? এটা জাতি হিসেবে আমাদের জন্য বড়ই লজ্জার ।

এই খসড়াটি সংশোদন করে অবিলম্বে জাতীয় সংসদ থেকে পাশ করিয়ে এটিকে সংবিধানের অন্তর্ভুক্ত করতে হবে । এবং তার পর নতুন নির্বাচনের ঘোষণা দিয়ে অবিলম্বে বর্তমান সংসদ ভেঙে দিতে হবে ।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

আপ্নার মডেল প্রায়ই ইরানের মতো, তবে ভাল না।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

ওকে, ভালো কী তা আপনি বলে দিন ।

----------------------------------------------------------
''কী শোভা, কী ছায়া গো, কী স্নেহ, কী মায়া গো''
আমার সোনার বাংলা ।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

সুন্দর আইডিয়া। সেই সাথে এক ব্যক্তি দুই বারের বেশী মন্ত্রী ও ৩ বারের বেশী সংসদ সদস্য হতে পারবে না এমন আইনও দরকার।

Abdur Rahman


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

কোন নতুন আইন কানুনের দরকার নেই। দরকার দেশ প্রেম। ঐটা নেই। যাদের ঐটা আছে, তাদের কিভাবে গ্রেনেড মেরে ঠান্ডা করা হয়, দেখেন নাই?

glqxz9283 sfy39587p07