Skip to content

সাইবার যুদ্ধ নিয়ে আমরা নিজেরা যেনো যুদ্ধে না জড়াই

ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

গত কয়েকদিন ধরে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে সাইবার যুদ্ধ শুরু হয়েছে। অবশ্য অনেকে এটাকে সাইবার যুদ্ধ বলতে আপত্তি জানিয়েছেন। ফেসবুকে, ব্লগে দেখলাম অনেকে এটাকে শিশুতোষ পাগলামি বলে আখ্যায়িত করেছেন। কেউ কেউ এর সাথে জামাত-হিজুর সংশ্লিষ্টতা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন। এসকল বিষয় নিয়ে কিছু বলার জন্যেই অনেকদিন পর একটি পোষ্ট দিলাম।

বাংলাদেশ ব্ল্যাক ব্যাট হ্যাকারস দাবী করছে সীমান্তে বিএসএফ এর হত্যা বন্ধের দাবীতে, এই অন্যায়ের প্রতিবাদে তারা ভারতীয় সাইবার স্পেস ধংসে নেমেছে। উদ্দেশ্য মহৎ। প্রতিদিনই সীমান্তে বিএসএফ কোনো না কোনো বাংলাদেশিকে হত্যা করছে। ন্যাংটো করে পেটাচ্ছে। আমাদের সরকার নীরব। সেটাই স্বাভাবিক। মেরুদন্ডহীন সরকারের কাছ থেকে এরচেয়ে বেশি আশা করাও ঠিকনা। শুধু সরকার না, মিডিয়াও যতটা সক্রিয়া ভূমিকা রাখতে পারত এই ইস্যুতে ততটা রাখছেনা। ফেসবুক, ব্লগে প্রতিবাদ হচ্ছে সেটা শুধু ফেসবুক আর ব্লগে সীমাবদ্ধ। ব্লগে আমি বিএসএফের কর্মকান্ডের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে পোষ্ট দিলাম। তাতে করে বিএসএফ কিংবা ভারতের বালটাও ছিড়বেনা।

এখন এই অবস্থায় একদল হ্যাকার সীমান্তে হত্যার প্রতিবাদে ভারতীয় ওয়েবসাইট হ্যাক করছে। কেউ কেউ বলছেন এটা আদৌ হ্যাকিং এর পর্যায়ে পড়েনা। আমি হ্যাকিং এর ব্যাপারে কিছুই জানিনা। জ্ঞান শূন্যের পর্যায়ে। শুধু এইটুকু বুঝি কিছু বাংলাদেশি তরুন সীমান্তে হত্যার প্রতিবাদে এক মিনিটের জন্য হলেও ভারতীয় ওয়েবসাইট হ্যাক করে প্রতিবাদ জানাচ্ছে। আমার জন্য এইটুকুই যথেষ্ট। সুশিলেরা তো অনেক কথাই বলেন, বলছেন। কাউকে দেখলামনা একটা আন্দোলন গড়ে তুলতে। দেখলামনা একা একাই রাস্তায় দাঁড়িয়ে প্রতিবাদ করতে। এখন যখন কেউ কিছু করার চেষ্টা করছে তখন শুরু হয়ে গেলো আমাদের চুলকানী। বাল পাকনার মত নানা মুনি নানা মত দেয়া শুরু করেছি।

গতকালকে এবং আজকে দেখলাম কেউ কেউ এটার সাথে জামাত এবং হিজবুত তাহরীরের সংশ্লিষ্টতার সম্ভাবনা নিয়ে সন্দিহান। আমার মতে এখন পর্যন্ত আমরা স্পষ্ট জানিনা আদৌ জামাত-হিজু এর সাথে জড়িত কিনা। আমরা কেনো না জেনেই আমাদের সন্দেহটা ছড়িয়ে বেড়াচ্ছি অন্যের মাঝে? কেনো বিভেদ সৃষ্টি করছি এই বিষয়ে? এখন সত্যি যদি হ্যাকাররা দেশপ্রেমের তাড়নায় কাজটি করে থাকে এবং তারা যদি এন্টি জামাত-হিজু হয়ে থাকে তাহলে এটাকি তাদের মনোবল নষ্ট করে দিবেনা?

কেউ কেউ আবার বলছেন এধরনের কর্মকান্ডে লিপ্ত না থেকে কন্সট্রাক্টিভ কাজে মনোযোগ দিতে। তাদের উদ্দেশ্যে বলতে চাই ভাই আপনার আমার কিছু করার হ্যাডম নাই, কিছু করার ইচ্ছেও নাই। একদল তরুন যখন বিএসএফের জঘন্য কাজের প্রতিবাদ করছে তখন কেনো তাদের বাধা দিচ্ছি? কোন অধিকারে দিচ্ছি? আপনি আমি কি করেছি দেশের জন্য?

শেষ কথা বলতে চাই আমরা জানিনা এই হ্যাকাররা কারা। তাদের উদ্দেশ্য কি শুধুই প্রতিবাদ করা নাকি অন্য কিছু এটাও আমরা জানিনা। তারা জামাতি নাকি নন জামাতি এই ব্যাপারেও আমরা কিছু জানিনা। যতক্ষন আমরা না জানব ততক্ষন আসুননা আমরা একটু চুপ থাকি? তাদেরকে উৎসাহ দিয়ে যাই? নিজেরা কিছু না করি, অন্যরা যখন করছে তখন বাধা না দিলে হয়না? সত্যিকারের হ্যাকিং এর সংজ্ঞা অনুযায়ী এরা হ্যাকিং করছে কিনা তা দেখার কি আসলেই কোনো প্রয়োজন আছে? ঐ যে বল্লাম এক মিনিটের জন্য হলেও ভারতীয় সাইটে যদি ফুটে উঠে 'বিএসএফের হত্যা বন্ধ কর' এটাই কি অনেক নয়? এই ছেলেরা সীমিত সামর্থ্য, সীমিত সুযোগ সুবিধা নিয়ে কাজ করছে যেখানে ভারতসহ অন্যান্য উন্নত দেশে হ্যাকারদের রীতিমত রাজার মত সুযোগ সুবিধা প্রদান করা হয়।

যতক্ষন না নেতিবাচক কিছু জানছি প্রমান সহকারে ততক্ষন পর্যন্ত আমরা আমাদের নেতিবাচক মন্তব্য বন্ধ রাখি। বাঙ্গালি নতুন কিছু সহজে গ্রহণ করতে পারেনা এই দুর্নাম আসুন ঘুচাই।

একিসাথে হ্যাকারদের প্রতিও একটি আবেদন রইলো। যে সাইবার যুদ্ধ শুরু হয়েছে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে এটি শুধুই আমাদের যুদ্ধ। আমাদের প্রতি অন্যায়ের প্রতিবাদ ও প্রতিকারের দাবীতেই এই যুদ্ধ। খেয়াল রাখবেন এই যুদ্ধ যেনো সাম্প্রদায়িক কোনো যুদ্ধে পরিনত না হয়। হিন্দু মুসলিম যুদ্ধে পরিনত না হয়। তা না হলে মানুষ যেভাবে আপনাদের মাথায় তুলে নিয়েছে সেভাবেই আছাড় মেরে ফেলে দিবে। যুদ্ধে জয়ী হওয়ার জন্য অনেকের কাছেই, অনেক দেশের কাছ থেকেই সাহায্য নিতে পারেন। তবে খেয়াল রাখবেন সাহায্য প্রদানকারী দেশগুলি কিংবা আমাদের দাবীতে একাত্ম দেশগুলি যেনো এই যুদ্ধকে নিজেদের স্বার্থ হাসিল কিংবা প্রতিশোধ কিংবা নিজেদের মত প্রকাশের যুদ্ধে পরিনত করতে না পারে।

জয় হোক বাঙ্গালির, জয় হোক বাংলাদেশের।

মন্তব্য


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

বাংলাদেশ ব্ল্যাক ব্যাট হ্যাকারস দাবী করছে সীমান্তে বিএসএফ এর হত্যা বন্ধের দাবীতে, এই অন্যায়ের প্রতিবাদে তারা ভারতীয় সাইবার স্পেস ধংসে নেমেছে। উদ্দেশ্য মহৎ।


আমার পয়েন্ট ভিন্ন।

ওরা প্রতিবাদ করছে কিন্তু একটা দেশের সাইবার সিস্টেম নষ্ট করতে যেগুলোর ম্যক্সিমামই পার্সোনাল সাইট। সরকারী শুধু পুলিশের সাইট হ্যাকড করছে- তাতে কি ওদের আমজনতার ক্ষতি হলো না লাভ হলো ? মাইক্রোসফট হ্যাকড করছে,এতে কি বাংলাদেশের সাথে ওদের সম্পর্ক ভালো হবে ?

পালটা আক্রমনে আমাদের সরকারী সাইটগুলো হ্যাক করছে ইন্ডিয়ানরা। এতে এদেশের ভাবমুর্তি কি উজ্জ্বল হলো ?

ধর, আমাদের দেশের অনলাইন ব্যাঙ্কিং ওরা হ্যাক করলো,এবং একজনের একাউন্টের টাকা আরেকজনের একাউন্টে ট্রান্সফার করলো - ক্ষতিটা কার হবে ? আবার ধর বাংলাদেশের ডিফেন্স সিষ্টেমকে ওরা ক্রাশ করলো- তখন ?


আচ্ছা ওদের ফেসবুক পেজে দুই/তিনটি কৌতুক পোস্ট করা হয়েছে,কৌতুকগুলি পড়েছ ? না পড়ে থাকলে পড়,ভাবো কি মনে হয়।

হ্যাকার ভাইদের কাছে আগাম রিকুয়েস্ট-

এই যুদ্ধে বিজয়ী হয়ে আবার একটা সাইবার যুদ্ধ চাই পাকিস্তানের সাইটগুলিতে তিনটি ইস্যুতে-

১.পাকিস্তানী সরকারের ৭১ এর মুক্তিযুদ্ধকালীন গনহত্যা-ধর্ষনের জন্য ক্ষমা প্রার্থনার জন্য
২.পাকিস্তান থেকে আমাদের পাওনা আদায়ের চাপ দেয়ার জন্য
৩. বাংলাদেশ থেকে বিহারীদের ফিরিয়ে নেয়ার নিমিত্তে চাপ সৃষ্টির জন্য।


ওদের সাইটে এই কমেন্ট করেছিলাম,ওদের কোন উত্তর নাই। অথচ একশ্রেনীর লোকজন সরকার বিরোধী বিভিন্ন গুজব ছড়াচ্ছে,আর হ্যাকাররা ঐগুজবকে প্রচার করছে।

___________
জয় বাংলা,জয় বঙ্গবন্ধু


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

সহমত


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

আমিও হ্যাকিং কি জানিনা, তবে এতে যদি সামান্যতমও সচেতনতা বাড়ে সেজন্য সহমত।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

@বেলের কাঁটা.., সহমত

হ্যাকার ভাইদের কাছে আগাম রিকুয়েস্ট-

এই যুদ্ধে বিজয়ী হয়ে আবার একটা সাইবার যুদ্ধ চাই পাকিস্তানের সাইটগুলিতে তিনটি ইস্যুতে-

১.পাকিস্তানী সরকারের ৭১ এর মুক্তিযুদ্ধকালীন গনহত্যা-ধর্ষনের জন্য ক্ষমা প্রার্থনার জন্য
২.পাকিস্তান থেকে আমাদের পাওনা আদায়ের চাপ দেয়ার জন্য
৩. বাংলাদেশ থেকে বিহারীদের ফিরিয়ে নেয়ার নিমিত্তে চাপ সৃষ্টির জন্য।

আমার দৃঢ় বিশ্বাস এরা এই কাজ করবে না।

------------
অকিঞ্চন
banglaydebu.blogspot.com


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

বেকাভাই শুধুমাত্র কিন্তু পার্সোনাল সাইটই হ্যাক করছেনা। সরকারী সাইটও হ্যাক করছে। এরা সার্ভার ডাউন করে দিচ্ছে যার ফলে সেই সার্ভারে থাকা সব সাইটই হ্যাক হয়ে যাচ্ছে। এটাকে আপনি পার্সোনাল সাইট হ্যাক বললে পারেন। যুদ্ধদেব কিন্তু আপনার এই প্রশ্নের উত্তর দিয়েই দিয়েছেন। আমাদের ব্যাংকিং সিস্টেম সিকিউরিট অনেক স্ট্রং। আমার ধারনা ধীরে ধীরে আমাদের হ্যাকাররাও ভারতীয় ব্যাংকিং সিস্টেম কিংবা ক্ষতি হয় এমন সাইট হ্যাক করবে। শুনেছি ভারতের স্টক এক্সচেঞ্জের সাইট হ্যাকের পরিকল্পনা করছে বিবিএইচএইচ।

ডিফেন্স সিস্টেম ক্রাশ করাও সহজ হবেনা। এখন সবকিছু ডিপেন্ড করছে মাথাওয়ালাদের উপর। নিজের পাশের বাসায় ডাকাতি হয়েছে দেখে আপনি যদি আপনার বাসার সিকিউরিটি বাড়ান তাহলে আপনি বুদ্ধিমান। আর যদি তাতেও না শিখেন তাহলে দোষ কার? ডাকাতের না আপনার?

_________________________________________________________________________________

সিগনেচার নাই।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

অহ আরেকটা কথা বেকা ভাই।

ওদের সাইটে এই কমেন্ট করেছিলাম,ওদের কোন উত্তর নাই।
আমি যতটুকু দেখেছি কোনো পোষ্টের বা কমেন্টের রিপ্লাই দেয়না পেজ এডমিন

_________________________________________________________________________________

সিগনেচার নাই।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

ব্যাপারটা আসলে এখনো ঠিকমতো বুঝে উঠতে পারলাম না। আর আমাদের দেশের সরকারি ওয়েবসাইটের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে প্রশ্ন তো রয়েছেই। সুতরাং হ্যকাররা যদি ইন্ডিয়ান ওয়েবসিইট বা সারভার হ্যাক করতে চায় তাইলে আগে নিজেদেরগুলোর নিরাপত্তা ব্যবস্থাকে মজবুত করে নেওয়া উচিত।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

সেটাই। হ্যাকাররা কিন্তু সাইট ডেভেলাপারদের বলেও দিচ্ছে কি করতে হবে

_________________________________________________________________________________

সিগনেচার নাই।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

ধর, আমাদের দেশের অনলাইন ব্যাঙ্কিং ওরা হ্যাক করলো,এবং একজনের একাউন্টের টাকা আরেকজনের একাউন্টে ট্রান্সফার করলো - ক্ষতিটা কার হবে ? আবার ধর বাংলাদেশের ডিফেন্স সিষ্টেমকে ওরা ক্রাশ করলো- তখন ?


আসলে আপনি যেমনটা ভাবছেন তেমনটা করা আসলে এত সহজ না। হ্যাকিং-এর নামে যেটা হচ্ছে সেটা মূলত “ সিকিউরিটি এক্সপ্লোয়েট ” আর কিছু দুর্বল এসকিউএল ডাটাবেজ হ্যাকিং ” এসকিউএল ইনজেকশনের ” মাধ্যমে। তথ্য-প্রযুক্তির ভাষায় হ্যাকিং বলতে মূলত যা বোঝায় তা আসলে সম্পূর্ণ অন্য জিনিস। এরা যা করছে তা হল মূলত কিছু সার্ভারকে সাময়িক শাটডাউন করে দেয়া এর বেশি কিছু না। আমাদের দেশের অনলাই ব্যাংকিং সিস্টেম অনেক সিকিউরড, এটা আমার অভিজ্ঞতা থেকে বলছি, আমি ব্যাংকে ইন্টারনশীপ করার সময় অনলাইন ব্যাংকিয়ের সিকিউরিটি সম্পর্কে বর্তমান পরিস্থিতি নিজের চোখে প্রত্যক্ষ করেছি তাও সেটা দু’বছর আগের কথা, এতদিনে হয়ত আরো সিকিউরড হয়েছে। ব্যাংকগুলোর বেশিরভাগই ইন্ট্রানেট বা কোন কোন ক্ষেত্রে ভিপিএন ব্যবহার করে। ইন্ট্রানেট হ্যাক করতে হলে অবশ্যই ব্যাংকের কোর সার্ভারে ফিজিক্যালি প্রবেশ করতে হবে, দূর থেকে ইন্টারনেটের মাধ্যমে করা যাবে না। আর ডিফেন্সে সিস্টেমের কথা জানিনা তবে আমাদের ডিফেন্স সিস্টেম খুব সম্ভব এখনো ডিজিটাল হয়নি, সেক্ষেত্রে হ্যাকিং-এর প্রশ্নই উঠেনা। আর যদি হয়ে থাকে তাহলে তাদের উচিৎ হবে ভিপিএন ব্যবহার করা কারণ ডিফেন্স সিস্টেম অবশ্যই অনেক গুরুত্বপূর্ণ আর এটার নিরাপত্তা হওয়া উচিৎ সবচেয়ে নিখুঁত।

কাজেই এসব শিশুতোষ এক্সপ্লয়টার (এদেরকে হ্যাকার বললে হ্যাকার শব্দের অবমাননা হয়) আমাদের ওয়েবসাইটগুলোকে বড়জোর কয়েক ঘন্টার জন্য শাটডাউন করতে পারবে তার চেয়ে বেশি কিছু করার সামর্থ্য এদের নেই। তারপরেও আমাদের সতর্ক থাকতে হবে এবং আমাদের দেশের তথ্য-প্রযুক্তি খাতের সাথে সংশ্লিষ্টদের এব্যাপারে যথাযথ পদক্ষেপ নিতে হবে আর যতদূর সম্ভব সর্বত্র ইনফরমেশন সিকিউরিটি নিশ্চিত করতে হবে।

আপনাকে ও লেখকে ধন্যবাদ।

------------------
ন্যায় এবং অন্যায়, দুইটার মধ্যে মাঝামাঝি কোন অবস্থান বলে কিছু নাই। মাঝামাঝি থাকা মানেই অন্যায়কে সাপোর্ট করা। নদীর দুইপারের যেকোন একপারেই আপনাকে থাকতে হবে, মাঝামাঝি থাকতে চাইলে হয় ডুবে যাবেন, অথবা ভাসতে ভাসতে যেকোন একপারেই আবার ভিড়বেন।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

ভারতের সোগা মারা দরকার, খুবই ভাল কথা। তা সেইটা করার জন্য পাকি শিশ্নের প্রয়োজন পড়ছে কেন ? "পাকিস্তান জিন্দাবাদ" স্লোগান দেয়ার দরকার পড়ছে কেন ? নিজেদের শিশ্নের হ্যাডম নাই ? নিজেদের সোর্ডফিশের হিরু ভাবতেছে ধ্বজভঙ্গের দল ?

___________________
------------------------------
শ্লোগান আমার কন্ঠের গান, প্রতিবাদ মুখের বোল
বিদ্রোহ আজ ধমনীতে উষ্ণ রক্তের তান্ডব নৃত্য।।
দূর্জয় গেরিলার বাহুর প্রতাপে হবে অস্থির চঞ্চল প্রলয়
একজন সূর্যসেনের রক্তস্রোতে হবে সহস্র নবীন সূর্যোদয়।।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

@ দ্রোহের মন্ত্র \m/ ,
সহমত

------------
অকিঞ্চন
banglaydebu.blogspot.com


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

মন্ত্র@ এইটা একটা গুরুত্বপূর্ন মন্তব্য। ব্যাক্তিগতভাবে এই ব্যাপারে আমি যা মনে করি সেটা লাস্ট প্যারায় উল্লেখ করেছি।

একিসাথে হ্যাকারদের প্রতিও একটি আবেদন রইলো। যে সাইবার যুদ্ধ শুরু হয়েছে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে এটি শুধুই আমাদের যুদ্ধ। আমাদের প্রতি অন্যায়ের প্রতিবাদ ও প্রতিকারের দাবীতেই এই যুদ্ধ। খেয়াল রাখবেন এই যুদ্ধ যেনো সাম্প্রদায়িক কোনো যুদ্ধে পরিনত না হয়। হিন্দু মুসলিম যুদ্ধে পরিনত না হয়। তা না হলে মানুষ যেভাবে আপনাদের মাথায় তুলে নিয়েছে সেভাবেই আছাড় মেরে ফেলে দিবে। যুদ্ধে জয়ী হওয়ার জন্য অনেকের কাছেই, অনেক দেশের কাছ থেকেই সাহায্য নিতে পারেন। তবে খেয়াল রাখবেন সাহায্য প্রদানকারী দেশগুলি কিংবা আমাদের দাবীতে একাত্ম দেশগুলি যেনো এই যুদ্ধকে নিজেদের স্বার্থ হাসিল কিংবা প্রতিশোধ কিংবা নিজেদের মত প্রকাশের যুদ্ধে পরিনত করতে না পারে।

_________________________________________________________________________________

সিগনেচার নাই।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

ঠিক কইছেন


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

Stare Stare Stare Stare

~-^
উদ্ভ্রান্ত বসে থাকি হাজারদুয়ারে!


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

_________________________________________________________________________________

সিগনেচার নাই।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

দেখা যাক পরিস্থিতি কোথায় যায়

----------------------------------
© সমান্তরাল ®


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

দেখার আগেই যেনো পরিস্থিতি আমরাই ঘোলা করে না ফেলি

_________________________________________________________________________________

সিগনেচার নাই।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

একিসাথে হ্যাকারদের প্রতিও একটি আবেদন রইলো। যে সাইবার যুদ্ধ শুরু হয়েছে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে এটি শুধুই আমাদের যুদ্ধ। আমাদের প্রতি অন্যায়ের প্রতিবাদ ও প্রতিকারের দাবীতেই এই যুদ্ধ। খেয়াল রাখবেন এই যুদ্ধ যেনো সাম্প্রদায়িক কোনো যুদ্ধে পরিনত না হয়। হিন্দু মুসলিম যুদ্ধে পরিনত না হয়। তা না হলে মানুষ যেভাবে আপনাদের মাথায় তুলে নিয়েছে সেভাবেই আছাড় মেরে ফেলে দিবে।
Star Star Star


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

ধন্যবাদ

_________________________________________________________________________________

সিগনেচার নাই।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

এই তথাকথিত সাইবার যুদ্ধর ফলে বিএসএফ এর কুকীর্তির কথা যদি সবাই জানতে পারে , তাহলে আমি কোন দোষ দেখছি না । যে উদ্দেশে এই যুদ্ধ ( প্রতিবাদ ? ) শুরু হয়েছে তা মহৎ , কিন্তু এ থেকে যেন কোন অসাধু উদ্দেশ্য বাস্তবায়ন না হয় সেটি খেয়াল রাখা জরুরি । কোন বিশেষ মহল যেন এই পুরো ব্যাপারটা থেকে ফায়দা লোটার চেষ্টা করতে না পারে , এ বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে ।

--------------------------------------------------------------------------------------------------------------------------------------
" যারা পাকিস্তানের সাথে রিকন্সিলিয়েশন এর ধুয়া তোলে , থুথু ছিটাই সেসব বেজন্মাদের মুখে "


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

এই কথা আমারো। ফেসবুকের একটা নোটের লিংক শেয়ার করলাম। লেখাটির সাথে আমার চিন্তাভাবনা বেশ অনেকখানি মিলে গেছে।

_________________________________________________________________________________

সিগনেচার নাই।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

হ্যাকার ভাই দের অনেক কে দেখলাম "ইন্সাল্লাহ" বলে Ddosing করতেছে। মনে হইল কাফির মারতেছে ! ক একজনের ফেবু তে গিয়া দেখলাম গো-আ র জন্য জিকির করছে !

দ্রোহের মন্ত্র \m/ , বেলের কাঁটা.. ভাই সহমত!

.........................................................................................................................................
জলের উপর পানি না পানির উপর জল......বল খোদা বল !


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

হ্যাকার ভাই দের অনেক কে দেখলাম "ইন্সাল্লাহ" বলে Ddosing করতেছে। মনে হইল কাফির মারতেছে ! ক একজনের ফেবু তে গিয়া দেখলাম গো-আ র জন্য জিকির করছে !


আবারো কি চমৎকার দেখা গেল!

------------------
ন্যায় এবং অন্যায়, দুইটার মধ্যে মাঝামাঝি কোন অবস্থান বলে কিছু নাই। মাঝামাঝি থাকা মানেই অন্যায়কে সাপোর্ট করা। নদীর দুইপারের যেকোন একপারেই আপনাকে থাকতে হবে, মাঝামাঝি থাকতে চাইলে হয় ডুবে যাবেন, অথবা ভাসতে ভাসতে যেকোন একপারেই আবার ভিড়বেন।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

নাল পিরান ইনশাল্লাহ বলায় সমস্যা কি বুঝলাম্না। ইনশাল্লাহ বললেই কি জামাতি হয়ে যায় নাকি? তাহলে তো আমি আমার চৌদ্দ গুষ্ঠি জামাতি!!! ইনশাল্লাহ ও গোআর জন্য উহআহ করা এক জিনিষ না এইটা যদি না বুঝে থাকেন তাইলে ব্লগে আইসেন না সোগা মারা খাইতে

_________________________________________________________________________________

সিগনেচার নাই।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

ভারতের আসতানা গুড়িয়ে দাও/

'''''' Man is mortal.''''''''' so be all people careful.''''''''''''''''''''


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

ঢিল, এই "হ্যাকিং" যারা করছে, তারা বেশীর ভাগই স্কুল কলেজের ছাত্র। যা করছে পুরাই আবেগের বশে করছে। এবং এই জন্য তারা আমার পূর্ন সমর্থন পাবে।

আর বাকিদের উদ্দেশ্যে বলছি যে আপনারা তো জানেনই যে বর্তমানে এই বয়সের ছেলে মেয়েরা বড় হয়েছে ভারতের অত্যাচার ও আগ্রাসন দেখতে দেখতে, পক্ষান্তরে ফাকিস্তান আমাদের কি করেছে সেটার ন্যূনতম ধারনা তাদের নাই। আর এক্ষেত্রে তারা দেখছে যে যেহেতু তারা একই ধর্মাবলম্বী এবং ভারত হচ্ছে কমন এনিমি, তাই তারা ফাকিস্তানের সাহায্য নেবেই। এক্ষেত্রে আমাদের তাদের সতর্ক করে দিতে হবে তারা যেন এমন কিছু না করে বা হতে দেয় যাতে করে বর্তমান পরিস্থিতিটা ভারত বাংলাদেশ বর্ডারে বিএসএফ এর নির্যাতন ইস্যু থেকে সরে গিয়া হিন্দু মুসলমান বা ফাকিস্তান ভারত ইস্যুতে রূপ না নেয় এবং আমরা ছাগলের তিন নাম্বার বাচ্চা না হই।

আর বাংলাদেশের সরকারি সাইট এবং সার্ভার গুলোর অবস্থা খুবই করুন। সরকারি সাইট গুলো অনেক খরচ করে অনেক সময় দিয়ে বানানো হয়, কিন্তু সেগুলো খুব বড়জোর ঘন্টা দুয়েকের কাজ, নেট থেকে টেমপ্লেট নাইলে শুধু টেবিল দিয়ে বানিয়ে ছেড়ে দেয়, মানে অন্যান্ন যে কোন সরকারি কাজের মতোই অবস্থা।

তবে আমাদের ডিফেন্সের সিস্টেম গুলো আমি যদ্দুর জানি লিনাক্স বেইজড, লিনাক্সের দূর্বলতা খুব কম। আর ব্যাঙ্ক গুলোর নিরাপত্তা ব্যবস্থাও মোটামুটি ভালো। ব্যাঙ্ক গুলোর সিস্টেম হ্যাক করা আমরা বিদেশী সিনেমায় যেমন দেখি, তেমন সোজা না। এগুলোর জন্য অনেক পূর্ব প্রস্তুতি নেয়া লাগে, অনেক পড়াশুনা এবং খোজ খবর নেয়া লাগে।

এটিএন্ডটি এর সিস্টেমে হ্যাক করে কল রেট পরিবর্তন করার জন্য হ্যাক করার আগে পৃথিবী বিখ্যাত এক হ্যাকার কে প্রায় এক মাসের মতো তাদের বিল্ডিং এর পেছনে গার্বেজ ডাম্প গুলো ঘাটতে হয়েছে শ্রেড করা অথবা পরিত্যাক্ত কাগজ খুঁজে বের করে দূর্বলতা খুঁজে বের করার জন্য। হ্যাকিং এতো সোজা না। নাইলে আমিও হ্যাকার হইয়া সুপার ইস্টার হইয়া যাইতাম!! Wink Wink

~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~
নাস্তিকদের দাঁত ভেঙ্গে দেয়া হোক, যেন তারা ঈদের সেমাই না খেতে পারে। ( রাইট টু কপিঃ ডঃ আইজুদ্দিন)


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

আর বাকিদের উদ্দেশ্যে বলছি যে আপনারা তো জানেনই যে বর্তমানে এই বয়সের ছেলে মেয়েরা বড় হয়েছে ভারতের অত্যাচার ও আগ্রাসন দেখতে দেখতে, পক্ষান্তরে ফাকিস্তান আমাদের কি করেছে সেটার ন্যূনতম ধারনা তাদের নাই। আর এক্ষেত্রে তারা দেখছে যে যেহেতু তারা একই ধর্মাবলম্বী এবং ভারত হচ্ছে কমন এনিমি, তাই তারা ফাকিস্তানের সাহায্য নেবেই।



যুদ্ধদেব ভাই, হ্যাকিং করতে (ইন ফ্যাক্ট প্রোগ্রামার হতে) অনেক মেধাবি হতে হয়, যুক্তিতে তুখোড় হতে হয়, পড়ালেখা করতে হয়। যে/যারা আজকে হ্যাক করছে তাদের আমি ছাড় দিতে নারাজ, তারা হ্যাক করার মতন মেধাবি যদি হতে পারে তবে অবশ্যই তাদের দেশের ইতিহাস সম্পর্কে জানার মতন রিসোর্স ছিল হাতের কাছে। ইন্টারনেট তারা ঘাটছে তবে অমি পিয়ালের, আরিফ জেবতিকের পোস্ট কি তারা পোড়ে নি ? ফাকিস্তানিরা কি করে গেছে সেই সম্পর্কে তাদের ভেতরে ন্যূণতম ধারণা নেই ? দেশ ও দেশের ইতিহাস সম্পর্কে ধারণা না রেখেই তারা আবেগের বশে একটা কাজে ঝাপ দিল অথচ ঝাপ দেয়ার আগে চিন্তা পর্যন্ত করল না আমার মায়ের ধর্ষোনকারীদের সাহায্য নিয়ে আমি আমার বোনের হত্যাকারীর বিচার চাইতে পারি না। মেধাবিদের ভেতরই যদি চেতনা জাগ্রত না হয় তবে আর শিবিরের গেলমানগুলারে দোষ দিয়ে লাভ কি ?

___________________
------------------------------
শ্লোগান আমার কন্ঠের গান, প্রতিবাদ মুখের বোল
বিদ্রোহ আজ ধমনীতে উষ্ণ রক্তের তান্ডব নৃত্য।।
দূর্জয় গেরিলার বাহুর প্রতাপে হবে অস্থির চঞ্চল প্রলয়
একজন সূর্যসেনের রক্তস্রোতে হবে সহস্র নবীন সূর্যোদয়।।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

শুধু মেধা থাকলে তো হবেনা! সেই মেধাকে তো লালন পালন করতে হবে। তারা নেটে পাচ্ছে অমি পিয়াল আর জেবতিক দের ব্লগ পোস্ট। তাদের কে বুঝানো হচ্ছে এগুলো আওয়ামী প্রোপাগান্ডা। তারা দেখছে যে ইন্ডিয়া আমাদের সাথে বন্ধু সুলভ আচরন করছেনা, এবং ফাকিস্তান সেই জন্য তাদেরকে সমবেদনা জানাচ্ছে, জামাত কথা বলছে ভারত বিরোধীতা করে। তারা তো তখন তাদেরকেই সঠিক ভাববে।

আর বেশিরভাগই বড় হয়েছে এইসব শুনে যে অতীত নিয়ে ঘাটাঘাটি করে লাভ নেই। মুসলমান ভাতৃত্ব ভেঙ্গে তাদের শোষন করতেই ভারত ষড়যন্ত্র করে ফাকিস্তান ভেঙ্গেছে। এবং এইসব ছেলেমেয়েরা বড় হচ্ছে দেখতে দেখতে যে ইন্ডিয়া আসলেই আমাদের শোষন করছে। তাহলে কার কথা তারা বিশ্বাস করবে বলো তো?

আর সবাই যে নেটে ঘাটাঘাটি করে বাংলাদেশের ইতিহাস খুঁজে, এটা খুব ভ্রান্ত একটা ধারনা।

~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~
নাস্তিকদের দাঁত ভেঙ্গে দেয়া হোক, যেন তারা ঈদের সেমাই না খেতে পারে। ( রাইট টু কপিঃ ডঃ আইজুদ্দিন)


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

এই ব্যাপারগুলা কি ভাই আপনার আমার সাথে হয় নাই ? প্রীতম, ঢিল, শনির চিঠির সাথে হয় নাই ? তাদেরও ভুল বোঝানো হইছে, ভুলটা গেলানো হইছে- কিন্তু আপনি, আমি আমরা সবাই যদি নিজের মাথা ব্যাবহার করে সঠিকটা জানার চেষ্টা করছি, ক্যালকুলেট করছি তাইলে এরা কেন করে না ? চেতনা ও যুক্তির লালন পালন নিজেদেরই করতে হয়, অন্য কেউ ভাইটামিন ট্যাবলেটের মতন গিলাইতে পারে না

___________________
------------------------------
শ্লোগান আমার কন্ঠের গান, প্রতিবাদ মুখের বোল
বিদ্রোহ আজ ধমনীতে উষ্ণ রক্তের তান্ডব নৃত্য।।
দূর্জয় গেরিলার বাহুর প্রতাপে হবে অস্থির চঞ্চল প্রলয়
একজন সূর্যসেনের রক্তস্রোতে হবে সহস্র নবীন সূর্যোদয়।।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

সবার তো এইসব বিষয়ে সমান আগ্রহ থাকে নারে ভাই। এদের অনেকেই পাস্ট ইজ পাস্ট নীতিতে বিশ্বাসী। তাদের সামনে বর্তমান হুমকী হচ্ছে ভারত। সেই ক্ষেত্রে তারা এখনকার মিত্র হিসেবে ফাকিস্তান কে দেখতেই পারে। সবাই যে সবকিছু নিজে নিজে বুঝবে, এই আশা করাও তো অন্যায়।

আর এইটাতো মানতেই হবে যে ৭৫ পরবর্তী সময়ে মুক্তিযুদ্ধ পূর্ববর্তী এবং সময়কালীন ইতিহাস মুছে ফেলতে এবং লুকিয়ে ফেলতে কিছু গোষ্ঠি যেই সব কর্মসূচী নিয়েছিলো, তা প্রায় শতভাগ সফল। আমরা তারই ফল পাচ্ছি। এ আর নতুন কিছু নয়।

আরেকটা বিষয় আমাদের মনে রাখতে হবে যে বুঝার দায়িত্ব খালি তাদের উপরে দিয়ে রাখলেই হবেনা, আমাদেরো দায়িত্ব আছে বুঝানোর।

~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~
নাস্তিকদের দাঁত ভেঙ্গে দেয়া হোক, যেন তারা ঈদের সেমাই না খেতে পারে। ( রাইট টু কপিঃ ডঃ আইজুদ্দিন)


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

যুদ্ধদেব আমার মনে হয়না এরা স্কুল কলেজের ছাত্র। স্কুল কলেজে ছাত্রের সাহস এত হবে বলে মনে হয়না। তাছাড়া হ্যাকাররা বলেছে তাদের মেম্বাররা পৃথীবির বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে এবং সেইভাবেই হ্যাকিং করছে ফলে হ্যাকিং হওয়া সাইটের সংখ্যা সঠিকভাবে জানা যাচ্ছেনা।
অবশ্য ব্ল্যাক হ্যাট নিজেরাই একটা বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে। বিডি নিউজে, বাংলানিউজে তারাই বলেছে যে পাকিস্তান, লিবিয়া, মালয়শিয়া, এনোনিমাস তাদের সাথে যোগ দিয়েছে। আজ সকালে তাদের স্ট্যাটাসে দেখলাম বলছে যে এই খবরটা ভিত্তিহীন। শুধুমাত্র এনোনিমাসের কয়েকজন সদস্য নৈতিকভাবে তাদের সমর্থন দিয়েছে।

পাকিস্তান ডিফেন্সের ফোরামে এক প্রশ্নের জবাবে বলা হয়েছে যে এই যুদ্ধে পাকিস্তান নিরোপেক্ষ। ভারতের সাথে তাদের নিয়মিতই হ্যাকিং পালটা হ্যাকিং হয়। এটাকেই কেউ কেউ বাংলাদেশের সাথে পাকিস্তাঙ্কে জড়িয়ে নিয়ে পারেন।

পাকিস্তানের ব্যাপারে আমার মনোভাব সবাই জানেন। বিপিএলে আমি সিলেট কিংবা ঢাকাকে সাপোর্ট করছিনা। করছি খুলনাকে কারন সেখানে কোনো পাকি নেই। কিন্তু এই ইস্যুতে আমি পাকিরা আমাদের সাথে যোগ দিয়েছে কি দেয়নি সেটা দেখতে চাইনা। বিএসএফ যেখানে স্পষ্টভাবে বলে দেয় সীমান্তে হত্যা বন্ধ হবেনা এবং আমাদের সরকার এবং মানুষজন মেরুদন্ডহীনের মত চুপচাপ থাকে তখন একদল হ্যাকাররা এর প্রতিবাদ করছে। এটাই আমার কাছে যথেষ্ট। অন্য কোনো ইস্যু আমি এখানে জড়াতে চাইনা। তবে এক্টাই চাওয়া এটা যেনো আমাদের যুদ্ধই থাকে। অন্য কারো স্বার্থ হাসিলের যুদ্ধে পরিনত না হয়

_________________________________________________________________________________

সিগনেচার নাই।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

এরা স্কুল কলেজের ছাত্রই। স্কুল কলেজের বলেই এরা এতো সাহস পাচ্ছে। আর দেশ বিদেশের হ্যাকার হইতেচ্ছুক রা নিজেদের মধ্যে একটা কমিউনিটি গড়ে তুলে তথ্য, কৌশল আর রিসোর্স আদান প্রদানের জন্য। তাই এরা বলতেই পারে যে দেশ বিদেশের হ্যাকার রা যোগ দিয়েছে তাদের সাথে।

~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~
নাস্তিকদের দাঁত ভেঙ্গে দেয়া হোক, যেন তারা ঈদের সেমাই না খেতে পারে। ( রাইট টু কপিঃ ডঃ আইজুদ্দিন)


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

দেশ ও দেশের ইতিহাস সম্পর্কে ধারণা না রেখেই তারা আবেগের বশে একটা কাজে ঝাপ দিল অথচ ঝাপ দেয়ার আগে চিন্তা পর্যন্ত করল না আমার মায়ের ধর্ষোনকারীদের সাহায্য নিয়ে আমি আমার বোনের হত্যাকারীর বিচার চাইতে পারি না।

সহমত।। উত্তেজিত অবস্থায় সঠিক সিদ্ধান্ত নেয়া কঠিন।

এটাও মনে রাখতে হবে যে, আমার মা/বাবা যদি আমাকে শেখায় যে তারা আমার মায়ের ধর্ষনকারী নয়, তাহলে আমি কোনটা বিশ্বাস করব??

------------------------------------------
কথায় না বড় হয়ে কাজে বড় হই।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

হুম

_________________________________________________________________________________

সিগনেচার নাই।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

http://www.nagorikblog.com/node/7597

------------------------------------------
কথায় না বড় হয়ে কাজে বড় হই।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

পড়েছি। লেখায় যথারীতি টিপিক্যাল বাঙ্গালি মনোভাবই প্রকাশিত হয়েছে

_________________________________________________________________________________

সিগনেচার নাই।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

হ্যাকিং একটি সাইবার ক্রাইম। হ্যাকিং'কে 'না' বলুন।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

তাই নাকি? তাইলে আপ্নে না বলেন

_________________________________________________________________________________

সিগনেচার নাই।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

পাকি আর ভারত আর ছাগু- ভাদা, সবডির মায়রে বাপ।
বাংলাদেশ জিন্দাবাদ।
ইনশাল্লাহ আমাগো ভাদার ঝামেলায় পাকি মক্কেল লাগবো না, বরং ২ লাইন বেশীই কই, কোন রাষ্ট্রর যেমন চীন, সৌদি এইতা আধা ছাগুও লাগবো না।
আমাদের যারা এই প্রতিরোধ করছে, তারা জানো নিজেরা বা খুব বেশী হলে ব্যক্তি হেকারের সাহায্য নেয়, কোন দেশের সাহায্য যেন না নেয়।

আর মনে রাখা উচিত, পাইক্কারা সব যায়গায় লাভ খুজে, এখানে তারা যেন তা না পায়।

আমি তো অবাক হইছি এই দেইখা,

পাকিস্তান ডিফেন্সের ফোরামে এক প্রশ্নের জবাবে বলা হয়েছে যে এই যুদ্ধে পাকিস্তান নিরোপেক্ষ। ভারতের সাথে তাদের নিয়মিতই হ্যাকিং পালটা হ্যাকিং হয়। এটাকেই কেউ কেউ বাংলাদেশের সাথে পাকিস্তাঙ্কে জড়িয়ে নিয়ে পারেন।


যাক কেউ যেন আলু পোড়া খাওয়ার সুযোগ না পায়, এই উইস করি।

*
অ,টঃ "ডানোর পট" মানে বেকুব, ভোদাই, তেল চুকচুক, হোঁতকা, ফার্মের মুরগী, নিজের ঘড় ছাড়া বাহিরের কিছু জানে না, আশৈশব বাবা মার আদরে কোলে কোলে পালিত, সকল বিপদ আপদে সুট করে পালিয়ে যাওয়া, মায়ের দুধের বদলে ডানোর দুধের পটের দুধ খেয়ে রিষ্ট পুষ্ট এক আধা মানব।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

কমেন্টে সুপার লাইক। সমস্যা হইলো আমাদের মধ্যে নতুন ফ্যাশন চালু হইসে। কারো কোনো বক্তব্য সামান্যতম ভারতের পক্ষে গেলেই তাকে আমরা ভাদা বানিয়ে দেই। কিংবা ভারতকে গালি দিলেই ছাগু বানিয়ে দেই। আমরা ভারত পাকিস্তানের বাইরে কিছু ভাবতে পারছিনা এটাই আমাদের সমস্যা। যতদিন নিজেদের বাঙ্গালি এবং বাংলাদেশি হিসেবে ভাবতে না শিখব ততদিন এভাবেই মার খেতে হবে সব জায়গায়

_________________________________________________________________________________

সিগনেচার নাই।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

পুরো একমত হতে পারছি না।


-----------------------------------------------------

আমি পথ চেয়ে আছি মুক্তির আশায়...


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

কোন বিষয়ে?

_________________________________________________________________________________

সিগনেচার নাই।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

হ্যাকারেরা তাদের সাফাই গাইতে যেসব যুক্তি তুলে ধরছে সে ব্যাপারে।


-----------------------------------------------------

আমি পথ চেয়ে আছি মুক্তির আশায়...

glqxz9283 sfy39587p07