Skip to content

বাংলাদেশের বিজয় দিবসে বিবিসির তিন তিনটি আর্টিকেল ও আমার পর্যবেক্ষন

ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

১৬ই ডিসেম্বর বিবিসি বাংলাদেশ নিয়ে তিন তিনটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে। এটা হতে খুব একটা দেখা যায় না যে এরকম একটা গুরুত্বপূর্ন সংবাদ-মাধ্যমে বাংলাদেশ নিয়ে একইদিনে একাধিক প্রতিবেদন প্রকাশ পায়। প্রতিবেদন তিনটি হল (প্রতিবেদনের বিস্তারিত কমেন্টে দেওয়া হল )-


১। Bangladesh at 40: The challenges ahead

২। Bangladesh: Forty years of independence

৩। Bangladesh war: The article that changed history


তো প্রতিবেদন তিনটার মধ্যে প্রথম দুটোতে আমাদেরকে নিয়ে পজেটিভ ও নেগেটিভ উভয় ধরনের কথা বললেও মোটের উপর টোন পজেটিভই ছিল। তিন নম্বর টা আসলে বিবিসির একটা আত্মপ্রচারনা পূর্ন লেখা। যেখানে তারা দাবি করছে যে সেই সময়ে তাদের একটা প্রতিবেদনই নাকি ইতিহাস বদলে দিয়েছে। সেই লেখার গুরুত্ব অবশ্যই আছে কিন্ত তারা নিজেদের ঢাক বেশ ভালোভাবেই বাজিয়েছে। তা বাজাক। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে বিবিসি সহ অনেক বিদেশী সংবাদমাধ্যমই গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা রেখেছে।

প্রথম দুটো আর্টিকেলে ১৯৭১ এ শাহাদাত বরনকারী মানুষের সংখ্যা বলা হল ৩০ লক্ষ। তারা কোন সোর্সের কথা উল্লেখ না করে নিজেরাই লিখেছে এটা।

The war had left three million people dead and a further 10 million displaced in India.



কিন্ত ৩ নং আর্টিকেলটা, যেটা বিবিসি আত্ম প্রচারনা পূর্ন লেখা সেখানে লেখক জানাচ্ছেন যে -


Nobody knows exactly how many people were killed, but certainly a huge number of people lost their lives. Independent researchers think that between 300,000 and 500,000 died. The Bangladesh government puts the figure at three million.

"নিরপেক্ষ গবেষকরা মনে করেন, এই সংখ্যা তিন থেকে পাঁচ লাখের মধ্যে। বাংলাদেশ সরকার মনে করে, ’৭১-এ মারা গেছে ৩০ লাখ বাঙালি।’"


কারা এই তথাকথিত "নিরপেক্ষ গবেষক" তা জানতে চাইতাম যদি এই পোষ্টের কমেন্ট সেকশনে মন্তব্য করার অপশনটা এনাবল থাকত। মুক্তিযুদ্ধে কত মানুষ মারা গেছেন এটা ছাগুদের খুব প্রিয় একটা বিষয়। তারা এই সংখ্যাটা কমিয়ে এনে একটা ধারনা দেবার চেষ্টা করে যে আসলে তাদের পাকিস্তানী মালিকরা খুব একটা খারাপ ছিল না। ৭১ এর পরে পাকিদের হামিদুর রহমান কমিশন নিহত বাঙালির সংখ্যা ২৬ হাজার ও তাদের টাকায় চলা শর্মিলা বসুদের মত দুই নম্বর লোকজন দয়া করে এইসংখ্যাটা ৫০ হাজার থেকে ১ লাখ বলে দাবি করে।


একই মানসিকতা ধারী দৈনিক আমার দেশ পত্রিকাটি বিবিসির ৩ নং আর্টিকেলের রেফারেন্স দিয়ে ছেপেছে যে (প্রথম পাতা - ১৭/১২/১১)-

বিবিসি ওয়ার্ল্ড সার্ভিসের প্রতিবেদন : ’৭১-এর মুক্তিযুদ্ধে তিন থেকে পাঁচ লাখ লোক মারা গেছে

সেখানে তারা খুব চালাকির সাথে আগে পরের কোন কিছু অনুবাদ না করে যে কয়টা লাইন ছাগুদের ধান্ধাবাজির পক্ষ যাবে সে কয়টা লাইন ছাপিয়েছে। কিন্ত প্রথম দুটো আর্টিকেলের ব্যপারে তারা চুপ। চুপ তো থাকতেই হবে সেখানে যে ৩০ লক্ষ সংখ্যাটা লিখা আছে! সেটা তো প্রকাশ হলে চলবে না! অদূর ভবিষ্যতে বিভিন্ন ব্লগে ছাগুদের অনলাইন আস্ফালনে এই রেফারেন্স যে ব্যবহৃত হবে তা বলাই বাহূল্য। কিন্ত তারা যে প্রথম দুটো লেখা নিয়ে চুপ থাকবে এটা দিব্যচোখে দেখা যায়।

একটা বাস্তবতা হল এসব করে তাদের কোন লাভ নাই, মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে ধোয়াশা তৈরীর দিন শেষ। যুদ্ধাপরাধীদের বিচার শুরু হয়েছে। সেটার রায় হয়ে ঘাতকদের ফাঁসি হবেই। ছাগুদের ম্যাৎকারের বেইল শেষ। ফুলস্টপ।

মন্তব্য


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

Bangladesh at 40: The challenges ahead
By James Melik Reporter, Business Daily, BBC World Service




After a war lasting nine months and with the aid of India, East Pakistan seceded from West Pakistan and became the independent state of Bangladesh on 16 December 1971.

The country did not have a very auspicious beginning.

The war had left three million people dead and a further 10 million displaced in India.

There soon followed a great famine which claimed at least another one million lives.

As with most famines, the causes of starvation on a mass scale in Bangladesh were multiple.

These included flooding, government mismanagement and so-called distributional failures - when food and aid intended for the hungry was stolen and never reached its destination.

The county's devastated infrastructure and markets were wholly unprepared to deal with the challenges that independence brought.

Furthermore, there was widespread corruption among newly appointed officials.

Change still sought

Throughout its history, Bangladesh has had to cope with natural disasters and political unrest.
Forty years later, many of the shortcomings exposed when the country gained its independence are still apparent.

There are at least three major concerns which remain to be addressed if life for the average person is to improve.

First - corruption is still rife - a recent Transparency International index measuring perceptions of corruption placed Bangladesh firmly among the worst countries, alongside other nations such as Mozambique and Kazakhstan.

The current government led by Sheikh Hasina came into power in 2009 promising to tackle the problem of corruption.

Many people believe that her attempts to improve the situation have been thwarted by officials who do not want to see a change to the status quo because it will mean they no longer receive the perks to which they have become accustomed.

Energy problems

Despite having bountiful natural resources, the lack of proper energy supplies in Bangladesh continues to hamper business.

There are frequently large scale and often violent demonstrations in different parts of Bangladesh over the thorny issue of power and energy supply.

Factories and industries which can afford it supply their own power by using generators, but, away from the large urban centres, a consistent source of energy is considered a luxury few can afford.

And finally, the lack of jobs.

With a population of 160 million, Bangladesh is one of the most densely populated countries in the world.

It is estimated that by 2020, half of the population will be under 30 years old.

Work needs to be found for the growing number of educated young people who are leaving the countryside to search for work in the cities.

But there are few jobs available and faced with little or no prospects for a better future, people could take to the streets to voice their protest - in much the same way we have witnessed across the Arab world over the past year.


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

এটা একটা ভিডিও নিউজ

Bangladesh: Forty years of independence


After a war lasting nine months and with the aid of India, East Pakistan seceded from West Pakistan and became the independent state of Bangladesh on 16 December 1971.

The country did not have a very auspicious beginning.

The war had left three million people dead and a further 10 million displaced in India.

There soon followed a great famine which claimed at least another one million lives.

The BBC's Anbarasan Ethirajan reports from Dhaka.


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি



Bangladesh war: The article that changed history
By Mark Dummett

On 13 June 1971, an article in the UK's Sunday Times exposed the brutality of Pakistan's suppression of the Bangladeshi uprising. It forced the reporter's family into hiding and changed history.

Abdul Bari had run out of luck. Like thousands of other people in East Bengal, he had made the mistake - the fatal mistake - of running within sight of a Pakistani patrol. He was 24 years old, a slight man surrounded by soldiers. He was trembling because he was about to be shot.

So starts one of the most influential pieces of South Asian journalism of the past half century.

Written by Anthony Mascarenhas, a Pakistani reporter, and printed in the UK's Sunday Times, it exposed for the first time the scale of the Pakistan army's brutal campaign to suppress its breakaway eastern province in 1971.

Nobody knows exactly how many people were killed, but certainly a huge number of people lost their lives. Independent researchers think that between 300,000 and 500,000 died. The Bangladesh government puts the figure at three million.

The strategy failed, and Bangladeshis are now celebrating the 40th anniversary of the birth of their country. Meanwhile, the first trial of those accused of committing war crimes has recently begun in Dhaka.


There is little doubt that Mascarenhas' reportage played its part in ending the war. It helped turn world opinion against Pakistan and encouraged India to play a decisive role.

Prime Minister Indira Gandhi told the then editor of the Sunday Times, Harold Evans, that the article had shocked her so deeply it had set her "on a campaign of personal diplomacy in the European capitals and Moscow to prepare the ground for India's armed intervention," he recalled.

Not that this was ever Mascarenhas' intention. He was, Evans wrote in his memoirs, "just a very good reporter doing an honest job".

He was also very brave. Pakistan, at the time, was run by the military, and he knew that he would have to get himself and his family out of the country before the story could be published - not an easy task in those days.

"His mother always told him to stand up and speak the truth and be counted," Mascarenhas's widow, Yvonne, recalled (he died in 1986). "He used to tell me, put a mountain before me and I'll climb it. He was never daunted."

When the war in what was then East Pakistan broke out in March 1971, Mascarenhas was a respected journalist in Karachi, the main city in the country's dominant western wing, on good terms with the country's ruling elite. He was a member of the city's small community of Goan Christians, and he and Yvonne had five children.

The conflict was sparked by elections, which were won by an East Pakistani party, the Awami League, which wanted greater autonomy for the region.

While the political parties and the military argued over the formation of a new government, many Bengalis became convinced that West Pakistan was deliberately blocking their ambitions.

The situation started to become violent. The Awami League launched a campaign of civil disobedience, its supporters attacked many non-Bengali civilians, and the army flew in thousands of reinforcements.

On the evening of 25 March it launched a pre-emptive strike against the Awami League, and other perceived opponents, including members of the intelligentsia and the Hindu community, who at that time made up about 20% of the province's 75 million people.

In the first of many notorious war crimes, soldiers attacked Dhaka University, lining up and executing students and professors.

Their campaign of terror then moved into the countryside, where they battled local troops who had mutinied.

Initially, the plan seemed to work, and the army decided it would be a good idea to invite some Pakistani reporters to the region to show them how they had successfully dealt with the "freedom fighters".

Foreign journalists had already been expelled, and Pakistan was also keen to publicise atrocities committed by the other side. Awami League supporters had massacred tens of thousands of civilians whose loyalty they suspected, a war crime that is still denied by many today in Bangladesh.

Eight journalists, including Mascarenhas, were given a 10-day tour of the province. When they returned home, seven of them duly wrote what they were told to.

But one of them refused.

Yvonne Mascarenhas remembers him coming back distraught: "I'd never seen my husband looking in such a state. He was absolutely shocked, stressed, upset and terribly emotional," she says, speaking from her home in west London.

"He told me that if he couldn't write the story of what he'd seen he'd never be able to write another word again."

Clearly it would not be possible to do so in Pakistan. All newspaper articles were checked by the military censor, and Mascarenhas told his wife he was certain he would be shot if he tried.

Pretending he was visiting his sick sister, Mascarenhas then travelled to London, where he headed straight to the Sunday Times and the editor's office.

Evans remembers him in that meeting as having "the bearing of a military man, square-set and moustached, but appealing, almost soulful eyes and an air of profound melancholy".

"He'd been shocked by the Bengali outrages in March, but he maintained that what the army was doing was altogether worse and on a grander scale," Evans wrote.

Mascarenhas told him he had been an eyewitness to a huge, systematic killing spree, and had heard army officers describe the killings as a "final solution".

Evans promised to run the story, but first Yvonne and the children had to escape Karachi.

They had agreed that the signal for them to start preparing for this was a telegram from Mascarenhas saying that "Ann's operation was successful".

Yvonne remembers receiving the message at three the next morning. "I heard the telegram man bang at my window and I woke up my sons and I was: 'Oh my gosh, we have to go to London.' It was terrifying. I had to leave everything behind.

"We could only take one suitcase each. We were crying so much it was like a funeral," she says.

To avoid suspicion, Mascarenhas had to return to Pakistan before his family could leave. But as Pakistanis were only allowed one foreign flight a year, he then had to sneak out of the country by himself, crossing by land into Afghanistan.

The day after the family was reunited in their new home in London, the Sunday Times published his article, under the headline "Genocide".
'Betrayal'

It is such a powerful piece of reporting because Mascarenhas was clearly so well trusted by the Pakistani officers he spent time with.

I have witnessed the brutality of 'kill and burn missions' as the army units, after clearing out the rebels, pursued the pogrom in the towns and villages.

I have seen whole villages devastated by 'punitive action'.

And in the officer's mess at night I have listened incredulously as otherwise brave and honourable men proudly chewed over the day's kill.

'How many did you get?' The answers are seared in my memory.

His article was - from Pakistan's point of view - a huge betrayal and he was accused of being an enemy agent. It still denies its forces were behind such atrocities as those described by Mascarenhas, and blames Indian propaganda.

However, he still maintained excellent contacts there, and in 1979 became the first journalist to reveal that Pakistan had developed nuclear weapons.

In Bangladesh, of course, he is remembered more fondly, and his article is still displayed in the country's Liberation War Museum.

"This was one of the most significant articles written on the war. It came out when our country was cut off, and helped inform the world of what was going on here," says Mofidul Huq, a trustee of the museum.

His family, meanwhile, settled into life in a new and colder country.

"People were so serious in London and nobody ever talked to us," Yvonne Mascarenhas remembers. "We were used to happy, smiley faces, it was all a bit of a change for us after Karachi. But we never regretted it."


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

দরকারী পোস্ট।
আমার দেশ শালারা ঠিকই বেছে বেছে ওদের যে লাইন লাগবে সেইটা অনুবাদ করছে!!

.....................................
মায়ের লাঞ্ছিত বুকে শকুন নখের দাগ... কে পেরেছে ভুলে যেতে কবে? ধর্ষিতা বোনটির বিভীষিকা মাখা চোখ আমায় জাগিয়ে রাখে, ডেকে বলে,
মনে রেখো এদিনের শোধ নিতে হবে!! , যদি বল ঘৃনাবাদী, দ্বিধাহীন মেনে নেব তাও


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

ধন্যবাদ ভাই। এই না হলে আমারদেশ পত্রিকা!


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

একমত। কালকেই শুরু হয়ে যাবে ফ্লাডিং

------------
অকিঞ্চন
banglaydebu.blogspot.com


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

একটা বাস্তবতা হল এসব করে তাদের কোন লাভ নাই, মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে ধোয়াশা তৈরীর দিন শেষ। যুদ্ধাপরাধীদের বিচার শুরু হয়েছে। সেটার রায় হয়ে ঘাতকদের ফাঁসি হবেই। ছাগুদের ম্যাৎকারের বেইল শেষ। ফুলস্টপ।

~-^
উদ্ভ্রান্ত বসে থাকি হাজারদুয়ারে!


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

smile :) :-)


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

একাত্তরে নিহতের সংখ্যা নিয়ে পিয়াল ভাই,শুভাশীষ দাস সহ আরো কয়েকজন ব্লগারের বেশ কিছু ভালো লেখা আছে।এই লেখাগুলো ইংরেজিতে অনুবাদ করে আন্তর্জাতিক জার্নালগুলোতে প্রকাশের ব্যবস্থা করতে হবে।

বিবিসির আত্মপ্রচারণা নিয়ে বলার কিছু নেই।কিন্তু যে বিষয়টির পক্ষে ভুরি ভুরি প্রমান আছে সেই বিষয়ে নিরপেক্ষ গবেষক আর সরকার পক্ষ আলাদা করে একটা সন্দেহ ঢুকিয়ে দেওয়াটা ভালো লাগলো না।

এই প্রসঙ্গে বলি, উইকিতেও কিন্তু বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে নিহতের সংখ্যার দুইটি হিসাব দেওয়া আছে।একই টেবিলের দুইটি কলামে ( Lowest estimate এবং Highest estimate ) দুইটি সংখ্যা - ২৬০০০ এবং ৩০০০০০০।এই সব তথ্য বিভ্রান্তির অবসান হওয়া উচিৎ খুব দ্রুত।

বিবিসির এই প্রতিবেদনের প্রতিক্রিয়া হিসেবেও একটি তথ্যসমৃদ্ধ বিশ্লেষণমূলক আর্টিকেল তৈরি করে তাদের কর্তৃপক্ষের বরাবরে পাঠানো যেতে পারে।

শর্মিলা বোসদের থামানো না গেলে এইসব তথ্য এবং ফ্যাক্ট ট্যুইস্টিং চলতেই থাকবে।আর বাংলাদেশে শর্মিলাদের এ্যাস কিসারদেরও অভাব নেই।আমার দেশ সেই গোষ্টীরই একটা উদাহরণ মাত্র।

*****************************
আমার কিছু গল্প ছিল।
বুকের পাঁজর খাঁমচে ধরে আটকে থাকা শ্বাসের মত গল্পগুলো
বলার ছিল।
সময় হবে?
এক চিমটি সূর্য মাখা একটা দু'টো বিকেল হবে?


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

চমৎকার মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ। ২৬,০০০ সংখ্যাটি খুব সম্ভবত পাকিস্তানের হামিদুর কমিশনের রিপোর্ট থেকে এসেছে।

বিবিসির আত্মপ্রচারণা নিয়ে বলার কিছু নেই।কিন্তু যে বিষয়টির পক্ষে ভুরি ভুরি প্রমান আছে সেই বিষয়ে নিরপেক্ষ গবেষক আর সরকার পক্ষ আলাদা করে একটা সন্দেহ ঢুকিয়ে দেওয়াটা ভালো লাগলো না।


লক্ষ্য করলে দেখবেন বিবিসি'র সবাই এরকম না। সেখানেই একদিনের তিনটা রিপোর্টের মধ্যে দুটোতেই ৩০ লক্ষ বলা হয়েছে। আর এই তিন নম্বর রিপোর্টখানা ছিল নিজেদের ঢাক নিজেরা বাজানো। তারা যে কেষ্টু বিষ্টু সেটা নিয়ে আওয়াজ দেয়া।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

বিবিসিকে মেইল করা যায়না? ব্যাপারটা গুরুত্বপূর্ন। প্রীতমদার বক্তব্যের সাথে একমত

_________________________________________________________________________________

সিগনেচার নাই।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

অনেক সময় এই জাতীয় রিপোর্টের নিচে কমেন্ট করার অপশন এনাবল থাকে। আর ঐ লেখক একটা চালাকি করেছে - সেটা হল সে নিজের পক্ষে বলতে পারবে যে আমি তো নিজের কথা বলি নাই। বলেছি "নিরপেক্ষ" পর্যবেক্ষকদের কথা। যদি পরিচয় জানতে চাওয়া হয় সেই তথাকথিত নিরপেক্ষদের তাহলে দেখা যাবে যে শর্মিল বসু আর তার ধামাধরারা হল সে পাবলিক!


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

বিবিসি'র সেই গনমুখী ভুমিকা আর নেই। একটা সময় মানুষ তাদের উপর অনেক নির্ভর করতো। এখন আমাদের কথা আমাদেরকে বলতে হবে আর আমাদের বিজয়ের গান আমাদেরকেই গাইতে হবে।

_____________________

ক্ষুদ্র স্বার্থ ভুলে মুক্তির দাঁড় টান।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

ধন্যবাদ। বিবিসি'র অন্যরা ৩০ লক্ষ সংখ্যাটা বলছে ঠিকই খালি ঐ তিন নং আর্টিকেলের লেখকই ত্যানা পেচাচ্ছে।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

৩০ লাখ শহীদের তথ্যটি কবে প্রথম প্রকাশিত হয়?

~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~
বহতা নদীর মতো বয়ে চলে সময়, সাথে চলে জীবন নামের তরী, কখন ডুবে যাবে, কে জানে!


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

প্রথম কবে প্রকাশিত হয় সেটা আমি ১০০% নিশ্চিত নই। খুঁজে দেখতে হবে। এবার আমার প্রশ্নের উত্তর দেন -

১। সংখ্যাটা ৩০,০০,০০০ না হয়ে ২৯,৯৯,৯৯৯ না ৩০,০০,০০১ হলে কি পাকিস্তানীদের পাপের পরিমানের কোন তারতম্য হয়?

২। যুদ্ধাপরাধীদের বিচার নিয়ে পিয়াল ভাইয়ের পোষ্টে যে ডকুমেন্টগুলো ছিল, সেগুলো পড়ার সময় হয়েছে?

৩। আপনার পোষ্টে অনুরোধ করেছিলাম যে শেখ হাসিনার বেয়াইয়ের রাজাকার হওয়ার প্রমান দিতে, তার কতদূর ভাই?


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

ফেসবুকে শেয়ার দিলাম। এই লেখা ছড়িয়ে যাওয়া দরকার।

....................................................................................


আমরা ছুডলোক, গালিবাজ। জামাত শিবির ছাগুর বিরুদ্ধে গালাগালি করেই যাব, প্রতিরোধ করেই যাব। সুশীলতার মায়েরে বাপ। আমরা ছাগু ও সুশীলদের উত্তমরূপে গদাম দিয়ে থাকি


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

অনেক ধন্যবাদ এম আর নাইন!


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

সরাসরি প্রিয়তে।

--------------------------------------------------------
সোনালী স্বপ্ন বুনেছি
পথ দিয়েছি আধারী রাত ........


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

ধন্যবাদ। smile :) :-)


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

শেয়ার করলাম!

- - - - - - - - - - - - - - - - - - - - - - - - -
"ভয় কি মরণে রাখিতে সন্তানে,
মাতঙ্গী মেতেছে আজ সমর রঙ্গে।

তাথৈ তাথৈ থৈ দ্রিমী দ্রিমী দং দং
ভূত পিশাচ নাচে যোগিনী সঙ্গে।

দানব দলনী হয়ে উন্মাদিনী,
আর কি দানব থাকিবে বঙ্গে।।"


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

ধন্যবাদ; smile :) :-)


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

ছড়িয়ে দিন । ছড়িয়ে দিলাম ।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

ধন্যবাদ। smile :) :-)


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

শেয়ার করলাম!

****************************
ঘৃণার চাষাবাদ জারি থাকুক প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে।মানবতা মানুষের জন্যই সংরক্ষিত থাক।পশুদের জন্য বরাদ্দ থাক শুধুই উগ্র ঘৃণার দাবানল।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

ধন্যবাদ। smile :) :-)


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

দরকারী পোস্ট। শেয়ার দিলাম।

***********************************************************************
"এহনবি জিন্দা আছি, মৌতের হোগায় লাথথি দিয়া
মৌত তক সহি সালামত জিন্দা থাকবার চাই"


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

ধন্যবাদ। smile :) :-)


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

এমন একটা পোস্ট যা শেয়ার না করলেই নয়। যাত্রী ভাইকে ধন্যবাদ।


-----------------------------------------------------

আমি পথ চেয়ে আছি মুক্তির আশায়...


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

প্রিয়তে নিলাম।শেয়ার তো করতেই হবে।

___________
জয় বাংলা,জয় বঙ্গবন্ধু

glqxz9283 sfy39587p07