Skip to content

Investigating Ramu Facts (রামুর সংখ্যালঘুদের উপরে ঘটে যাওয়া হামলার তদন্ত).

ব্লগারের প্রোফাইল ছবি


বন্ধুরা,

আমরা ইয়ুথ ফর পিস অ্যান্ড ডেমোক্রেসি (YPD) এর ইমারজেন্সি রেস্কিউ টিম, সাধারন ব্লগার, অনলাইন এক্টিভিস্ট , সাংবাদিক, এবং অন্যান্য নাগরিক প্রতিনিধিদের নিয়ে বুধবার(অক্টোবর ০৩, ২০১২) থেকে রামুতে এবং তৎসংলগ্ন এলাকাতে একটি নাগরিক তদন্ত পরিচালনা শুরু করব, যার উদ্দেশ্য হবে একদম ব্যক্তি পর্যায় থেকে তদন্ত শুরু করে এ পর্যন্ত সংখ্যালঘুদের উপরে ঘটে যাওয়া হামলাগুলোর পিছে দায়ীদের চিহ্নিত করা এবং তাদের অপরাধের প্রমান-আলামত সংগ্রহ করা।

আমরা বিশ্বাস করি,
ধর্ম রক্ষার দায়িত্ব আমাদের এবং সেই সাথে ধর্ম প্রদত্ত কর্তব্য সমুহ পালনের দায়ও আমাদের। আর বিবেকের সেই দায় মেটাতেই আমরা উদ্যোগী হয়েছি, ঘটে যাওয়া সেই ঘৃণিত হামলা গুলোর পিছনের কারন সমূহ উদ্ঘাটন করে দায়ীদের শাস্তি নিশ্চিত করতে।

আমাদের এই কর্মসূচীর বিস্তারিত কিছু অংশ আছে। তবে প্রাথমিক পর্যায়ে আমরা যা করতে চাই, তা হলঃ

১। আমরা রামুর হামলার স্বীকারএবং ক্ষতিগ্রস্তদের এবং সেই সাথে এলাকা বাসির সহযোগিতায় প্রকৃত দায়ী ব্যক্তিদের খুঁজে বের করে চিহ্নিত করতে চাই, এবং সেই সাথে তাদের অপরাধের প্রমান সংগ্রহ করে যথাযথ কর্তৃপক্ষের হাতে তুলে দিতে চাই।

২। এই সম্পূর্ণ ঘটনা নিয়ে আমরা একটি দলিল তৈরি করব, যাতে ঘটনার পটভূমি, এর পিছনের ষড়যন্ত্র এবং সম্পূর্ণ ঘটনা দেশের সর্বসাধারণ জানতে পারে।

৩। আমাদের তদন্তে পাওয়া ফ্যক্টসমূহ নিয়ে আমরা তদন্ত শেষের পরে একটি সংবাদ সম্মেলন করা, একটি তদন্ত প্রতিবেদন পেশ করব এবং দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য পর্যায়ক্রমিক ভাবে কিছু কর্মসূচী হাতে নেওয়া এবং দোষীদের শাস্তি নিশ্চিত করা।

৪। এই ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি রোধে সচেতনতামুলক কার্যক্রম এবং সামাজিক প্রতিরোধ গড়ে তুলবার জন্য দেশ ব্যাপি সামাজিক আন্দোলন তৈরি করা।

আমরা বিশ্বাস করি তরুণদের মধ্যেই শক্তি আছে অন্যায়ের প্রতিবাদের। আর তাই এখন থেকে দেশের যে কোন স্থানে, যে কোন সময়ে, যে কোন ধরনের দুর্যোগে আমরা আপনাদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য প্রস্তুত থাকব, কারন আমরা বাঙ্গালীরাই পারি ক্ষতিগ্রস্তদের সাহায্য করতে এবং যে কোন ধরনের অন্যায় রুখতে।

আর তাই, আমরা চাই,

আমদের এই কর্মসূচীর প্রতিটি ধাপে আপনার শারিরিক অংশ গ্রহন, নৈতিক সমর্থন এবং প্রেরনা।

আমাদের সাথে যোগাযোগের বিস্তারিতঃ

ইমরান এইচ সরকার
০১৭১১৩২৩৩৪১

মাহমুদুর রহমান মুনশি
০১৬৭৪৭৭৪৬৩৩

মন্তব্য


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

১। আমরা রামুর হামলার স্বীকারএবং ক্ষতিগ্রস্তদের এবং সেই সাথে এলাকা বাসির সহযোগিতায় প্রকৃত দায়ী ব্যক্তিদের খুঁজে বের করে চিহ্নিত করতে চাই, এবং সেই সাথে তাদের অপরাধের প্রমান সংগ্রহ করে যথাযথ কর্তৃপক্ষের হাতে তুলে দিতে চাই।

# মানুষ হত্যার শাস্তি মূতু্যদন্ড বা যাবতজীবন কারাদন্ড তবে মন্দির ভাঙ্গার শাস্তি কি , আইনে ?

২। এই সম্পূর্ণ ঘটনা নিয়ে আমরা একটি দলিল তৈরি করব, যাতে ঘটনার পটভূমি, এর পিছনের ষড়যন্ত্র এবং সম্পূর্ণ ঘটনা দেশের সর্বসাধারণ জানতে পারে।

৩। আমাদের তদন্তে পাওয়া ফ্যক্টসমূহ নিয়ে আমরা তদন্ত শেষের পরে একটি সংবাদ সম্মেলন করা, একটি তদন্ত প্রতিবেদন পেশ করব এবং দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য পর্যায়ক্রমিক ভাবে কিছু কর্মসূচী হাতে নেওয়া এবং দোষীদের শাস্তি নিশ্চিত করা।


প্রতিদিন সকালে কাঠাল পাতার রস এক গ্লাস - সেবন করুন। নিজেরে লাইম-লাইটে আনার আরো ভাল বুদ্ধি মাথায় আসবো।

# Satyajit Das #
# Powered by MacOSX Lion #


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

এইটা একটা শেয়ারিং এবং গুরুত্বপুর্ন পোস্ট। নইলে তোমারে গাং বানাইতাম ফাইযলামীর জন্য।

___________
জয় বাংলা,জয় বঙ্গবন্ধু


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

সত্যজিৎ দাশ,
আপনাকে নিন্দা জানাতেও ঘেন্না হচ্ছে। আপনি কি বুঝছেন, এই জঘন্য ঘটনা আমাদের কোথায় নামিয়েছে!
পারলে ঘটনার সত্য উদঘাটনে সহায়তা করুন। নাইলে চুপ থাকুন।


প্রতিদিন সকালে কাঠাল পাতার রস এক গ্লাস - সেবন করুন। নিজেরে লাইম-লাইটে আনার আরো ভাল বুদ্ধি মাথায় আসবো।

এধরণের আবালমার্কা কমেন্ট কইরেন না। পোস্টের সম্মানে আপনি অনিবার্য বাশ থেকে বেচে গেলেন।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

আপনার এই পোস্ট অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। একাজে সকলের ঐকান্তিক সহযোগিতা কামনা করছি। দেশের স্বার্থে এর একটা বিহিত হওয়া উচিত।

আমাদের হাজার বছরের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি আজ কিছু উগ্র শকুনের থাবায় হুমকির সম্মুখীন। আশাকরি ওয়াইপিডির কার্যক্রম সফল হবে।

এই কার্যক্রম সম্পূর্ণ রাজনৈতিক ও ধর্ম-বর্ণ-গোত্র-সম্প্রদায়িক প্রভাবমুক্ত হতে হবে, তাহলে এটা শতভাগ সফল হবে।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

আমাদের হাজার বছরের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি আজ কিছু উগ্র শকুনের থাবায় হুমকির সম্মুখীন।


ছাগালাপী নুরহাদি সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির কথা কয়।



চুইদা গাং বানায়ে দিমু খাঙ্কীর পুলা, প্রীতমেরে কি কইছিলি দেখি নাই মনে করছোস? এখন রিভার্স খেলতে আসছোস বাঞ্চোদ।

....................................................................................


আমরা ছুডলোক, গালিবাজ। জামাত শিবির ছাগুর বিরুদ্ধে গালাগালি করেই যাব, প্রতিরোধ করেই যাব। সুশীলতার মায়েরে বাপ। আমরা ছাগু ও সুশীলদের উত্তমরূপে গদাম দিয়ে থাকি


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

এই কার্যক্রমের সাফল্য কামনা করি।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

নৈতিক সমর্থন থাকল।
এই কার্যক্রম সম্পূর্ণ রাজনৈতিক ও ধর্ম-বর্ণ-গোত্র-সম্প্রদায়িক প্রভাবমুক্ত রাখতে পারলে ভাল হবে, সফল হবে, দীরঘ দিন টিকে থাকবে।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

সাফল্য কামনা করি।

---------------------------------------------------------------------------------
'মুক্তিযোদ্ধা সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ সন্তান, দেশ ও জনগণের অতন্দ্রপ্রহরী ১৯৭১ সালের বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. মোসলেম উদ্দিন...।'


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

আমরা বিশ্বাস করি তরুণদের মধ্যেই শক্তি আছে অন্যায়ের প্রতিবাদের। আর তাই এখন থেকে দেশের যে কোন স্থানে, যে কোন সময়ে, যে কোন ধরনের দুর্যোগে আমরা আপনাদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য প্রস্তুত থাকব, কারন আমরা বাঙ্গালীরাই পারি ক্ষতিগ্রস্তদের সাহায্য করতে এবং যে কোন ধরনের অন্যায় রুখতে।


সহমত এবং স্যালুট!

---------------------------------------------------------------------------------
'মুক্তিযোদ্ধা সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ সন্তান, দেশ ও জনগণের অতন্দ্রপ্রহরী ১৯৭১ সালের বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. মোসলেম উদ্দিন...।'


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

এই কার্যক্রমের সাফল্য কামনা করি।

=========================================================
স্মৃতি ঝলমল সুনীল মাঠের কাছে আমার অনেক ঋণ আছে......


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

খুব ভালো উদ্যোগ, সাধুবাদ জানাই।

সাংবাদিক বা পুলিশী তদন্ত নয়, শার্লক হোমস স্টাইলে তদন্ত চাই। তদন্ত কর্মকর্তার সংখ্যার ভারে তদন্ত যেন বিফলে না যায়। দুটো/তিনটা বিষয়ে একটু ভালোভাবে দেখা যেতে পারে, ১। ঘটনার আগের দিন স্থানীয় পুলিশ নাকি একটি বাস/গাড়ী থেকে সন্দেহজনকভাবে কিছু অপরিচিত ব্যাক্তিদের আটক করে যারা কোথায় যাচ্ছে ক্লিয়ার করে কিছু বলতে পারেনি, তাদের সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে হবে। ২। পুলিশ কর্তৃক বিভিন্ন আটককৃত, ওয়েস্টার্ন মেরিন ওয়ার্কশর্প থেকে আটককৃত শ্রমিকদের পারিবারিক ব্যাকগ্রাউন্ড, বিশেষ করে ঐ এলাকার স্থানীয় নয় অথচ ঘটনার দিনে উপস্থিতি এমন লোক বা লোকদের ব্যাপারে খবর নেয়া যেতে পারে। ৩। উত্তম বড়ুয়ার বিষয়টি, তাঁর ফেইসবুক একাউন্টটি বাস্তবে সে ব্যবহার করতো কিনা এবং তাঁর লিস্টে বন্ধু-বান্ধবদের যতটা পারা যায় ডিটেলস।

খুব হেডমাস্টরগিরি করলাম কি ? তাই মনে হলে, দুঃখিত। আসলে আপনাদের সাথে যোগ দেয়ার খুব ইচ্ছা কিন্তু উপায় নাই গোলাম হোসেন।

**********************************************
ধর্ম যবে শঙ্খ রবে করিবে আহবান, নিরব হয়ে নম্র হয়ে পণ করিও প্রাণ


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

রামুর ঘটনার সাথে মায়ানমারের ঘটনার কোন সম্পর্ক নাই তো ???

============================
( কে আমার হাত থেকে ফূল নিবে ? )


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

আমি থাকতে চাই । চট্টগ্রামে থাকি । যদি ছুটির দিন হয় তাহলে আপনাদের সাথে যেতে পারবো ।

" মুক্তি এখনো আসে নি, বিপ্লব অপেক্ষমাণ "

" মুক্তি এখনো আসে নি, বিপ্লব অপেক্ষমাণ "


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

রামু তে যেতে পারলে ভালো হত !

সাফল্য কামনা করি এই মহতি উদ্যোগ এর।

=========================================================

কৃষ্ণচূড়া ফুল হবো,
প্রিয় মানুষের হাতের মুঠোয়!


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

স্থানীয় আওয়ামিলীগ নেতা-কর্মী যারা সেদিন মন্দির পোড়ানোর সাথে জড়িত ছিলেন (যদি), তাদের ব্যাকগ্রাউন্ড এবং তাদের কারো সাথে বৌদ্ধ ধর্মের বা মন্দিরের পুরোহিতের কারো সাথে পারিবারিক বা জমি-জমা সংক্রান্ত ঝগড়া রয়েছে কিনা তাও যাচাই করে দেখতে পারেন।

**********************************************
ধর্ম যবে শঙ্খ রবে করিবে আহবান, নিরব হয়ে নম্র হয়ে পণ করিও প্রাণ


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

সৎ ও সাহসী উদ্যোগ, শতভাগ সহমর্মীতা জানালাম।

_____________
কবে কোন প্রদোষকালে
এসেছিলে হেথা হে প্রাকৃতজন
এ বিলের জেলেদের জালে
পেয়েছিলে কবে সে রুপকাঞ্চন


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

ভাল উদ্যোগ। কিন্তু যদি দেখেন যে আপনাদের প্রানপ্রিয় দলই এতে জড়িত, তখন কি করবেন? ফেসবুকে বিএনপি দেখলাম বেশ সক্রিয় এবং ছবি সহকারে প্রমান সাবুদ হাজির করছে।





ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

আপনার ছবি দুটি দেখে খুব সাধারন প্রশ্ন করি,অসাধারন উত্তর দিয়েন না-
১ম ছবিতে বিপ্লব বড়ুয়ার কথা বলা হইছে - সে কে ? এই নাম কই থেকে আসল?
২য় ছবিতে আনছার আলী,কক্সবাজার লেখা- উনি কে ? কোন পেপারে এই ছবি এসেছে ?

___________
জয় বাংলা,জয় বঙ্গবন্ধু


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

বেলের কাঁটার পাশাপাশি আমি আরো দুটো প্রশ্ন করি-

১। প্রথম আগুন কে লাগিয়েছিলো ?
২। এটি পার্টির মিছিল নাকি এলাকাবাসীর মিছিল ?

**********************************************
ধর্ম যবে শঙ্খ রবে করিবে আহবান, নিরব হয়ে নম্র হয়ে পণ করিও প্রাণ


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

কিন্তু যদি দেখেন যে আপনাদের প্রানপ্রিয় দলই এতে জড়িত, তখন কি করবেন?
তাহলে আর তদন্তের কোন প্রয়োজন নাই, কি বলেন?

_____________
কবে কোন প্রদোষকালে
এসেছিলে হেথা হে প্রাকৃতজন
এ বিলের জেলেদের জালে
পেয়েছিলে কবে সে রুপকাঞ্চন


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

ধর্ম বর্ন নির্বিশেষে আমাদের সর্বপ্রথম পরিচয় আমরা বাংলাদেশী। এই পৃথীবির সকল ধর্মই এসেছে শান্তির বার্তা নিয়ে। কোন ধর্মই মৌলবাদ সমর্থন করেনা। মৌলবাদ তা সে যে ধর্মেরই হোক না কেন, তার স্রষ্টা কোন ধর্ম নয়, এর স্রষ্টা কুচক্রী ও ষঢ়যন্ত্রকারীরা, যাদের মুল উদ্দেশ্য ফায়দা লোটা। আর মৌলবাদসহ সকল প্রকার সন্ত্রাস দমনে যেটা সবচেয়ে সবচেয়ে আগে প্রয়োজন তা হচ্ছে দেশে আইনের শাষন। এই পৃথীবির সকলদেশেই সংখ্যালঘু আছে। কিন্তু এদের নিরাপত্তা প্রদানের দায়ভার দেশের সরকারের। সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা বা রায়ট বিস্তার লাভ করার বহু আগেই উন্নত দেশে তা কঠোর হস্তে দমন করা হয়।

আমাদের দেশে বিএনপি/জামাত, আওয়ামিলীগ কেউই আইনের প্রতি বিন্দুমাত্র শ্রদ্ধাশীল নয়। জনগনের জানমালের নিরাপত্তা নিয়ে তাদের কারোরই কোন মাথাব্যাথা নেই। সংখ্যালঘু, সংখ্যাগুরু কারোরই এদেশে একফোটা নিরাপত্তা নেই। আমরা যদি আমাদের মৌলিক অধিকার পেতে চাই, জান মালের নিরাপত্তা চাই,সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি চাই, তবে সবচেয়ে আগে আমাদের আওয়াজ তোলা প্রয়োজন বিএনপি/জামাত ও আওয়ামিলীগ নামক দুই গুন্ডাবাহিনীর বিরুদ্ধে, যারা প্রতি মুহুর্তে নিজেদের ফায়দা লোটার উদ্দেশ্য আমাদের প্রতিনিয়ত দাবার ঘুটির মত ব্যবহার করে চলেছে।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

সফলতা কামনা করছি


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

@বেলের কাটা,

নাগরিক ব্লগের এক ব্লগারের পোস্ট কপি পেস্ট করলাম।

কক্সবাজারের রামু সদরে যে ঘটনা থেকে বৌদ্ধবসতিতে হামলা ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছে, তার শুরুটা করেছিল আওয়ামী লীগের অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরাই। শনিবার রাত ১০টার দিকে ফেসবুকে ‘কোরআনের ওপর মহিলার দুই পা’র ছবি ট্যাগকারী উত্তম বড়ুয়ার সঙ্গে তর্কাতর্কি হয় আওয়ামী মত্স্যজীবী লীগের রামু উপজেলা সভাপতি আনছারুল হক ভূট্টোর। ওই ঘটনার পরই আনছারুল হক ভূট্টোর নেতৃত্বে মিছিল বের হয়। আর সেই মিছিল থেকেই পরিস্থিতি আস্তে আস্তে উত্তাল রূপ নেয়।

স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শীর বক্তব্য ও অনুসন্ধানে জানা যায়, সহিংস ঘটনা শুরু হওয়ার ৩-৪ দিন আগে ফেসবুকের ‘ইনসাল্ট আল্লাহ’ নামের একটি অ্যাকাউন্ট থেকে রামু সদরের বড়ুয়া পাড়ার যুবক উত্তম কুমার বড়ুয়া বিতর্কিত ছবিটি শেয়ার করেন। শেয়ার করার পর রামু উপজেলা মত্স্যজীবী লীগের সভাপতি আনছারুল হক ভূট্টোও ছবিটি দেখতে পান। ছবিটি দেখার পর উত্তম বড়ুয়ার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে মোবাইল নম্বর নিয়ে তার সঙ্গে মোবাইলে কথা বলেন।

সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র দাবি করেছেন, মত্স্যজীবী লীগের নেতা ভূট্টো বিতর্কিত ছবিটি কেন সে ফেসবুকে শেয়ার করেছে জানতে চাইলে উত্তম বড়ুয়া উল্টো তার সঙ্গে খারাপ আচরণ করে। এ ঘটনায় ক্ষিপ্ত হয়ে আনছারুল হক ভূট্টো ‘তুমি দাঁড়াও, আমি আসছি’ বলে মোবাইল রেখে দেন।

সূত্রগুলোর মতে, মোবাইল রাখার পরপরই মত্স্যজীবী লীগ নেতা আনছারুল হক ভূট্টো তার দলীয় ছেলেদের খবর দেন। পরে রাত ১০টার দিকে প্রথম মিছিলটি বের করেন তিনিই। ওই মিছিল থেকে বিতর্কিত ছবি ট্যাগকারী উত্তম বড়ুয়ার শাস্তি দাবি করা হয়। ওই মিছিলে আনছারুল হক ভূট্টো ছাড়া জেলা ছাত্রলীগ সদস্য সাদ্দাম হোসেন, স্বেচ্ছাসেবক লীগের ফতেখাঁরকুল ইউনিয়ন সভাপতি আজিজুল হক, যুবলীগ নেতা সাব্বিরের ভাই হাফেজ মোহাম্মদসহ আওয়ামী লীগের অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরাই ছিলেন।

মিছিল শেষে রামু চৌমুহনী চত্বরে একটি সমাবেশও করেন তারা। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন যুবলীগ নেতা নুরুল ইসলাম সেলিম, মত্স্যজীবী লীগ নেতা আনছারুল হক ভূট্টো প্রমুখ।

এই সমাবেশ থেকে ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ‘দুষ্কৃতকারী’দের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেয়া না হলে পরদিন রামুতে বৃহত্তর কর্মসূচিসহ হরতাল পালনের ঘোষণা দেয়া হয়। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক প্রত্যক্ষদর্শী জানান, মাত্র ৫০-৬০ জনের ওই মিছিলটিই ছিল এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে প্রথম মিছিল।

তাদের মতে, মিছিল ও সমাবেশ শেষে আবারও মিছিলটি রামুর বিভিন্ন সড়ক ঘুরে বড়ুয়া পাড়ার দিকে ঢুকে যায়। পরে ওই মিছিলেই আস্তে আস্তে লোক বাড়তে থাকে। একসময় তা হাজারে হাজারে হয়ে যায়। উত্তেজিত মানুষ তখন কেবলই বড়ুয়াপাড়া ও বৌদ্ধ মন্দিরসহ সংশ্লিষ্ট স্থাপনামুখী।

এ ঘটনা নিয়ে স্থানীয় পত্রিকা ও ওয়েবসাইটে ছবিসহ নিউজ ছাপা হয়েছে। তবে এ ব্যাপারে মত্স্যজীবী লীগ নেতা আনছারুল হক ভূট্টোর বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে পুলিশ ও অন্যান্য আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ভুমিকাকেও রহস্যময় বলছেন স্থানীয়রা। এর আগে যেখানে বিরোধী নেতাকর্মীরা মিছিল বের করার ১০ মিনিটের মাথায় পুলিশ ছত্রভঙ্গ করে দিত, সেখানে এই ঘটনা ঘটার ৫/৬ ঘণ্টা পরেও ঘটনাস্থলে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর কাউকে দেখা যায়নি। পরের দিন বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে ১৬৬ জনকে গ্রেফতার করলেও এর মধ্যে মিছিলে নেতৃত্ব দানকারী কেউ ছিলোনা।

সবচেয়ে বড় কথা হল, যে বৌদ্ধ যুবকের উস্কানিতে সন্ত্রাসীরা নিরীহ জনগণের উপর ঝাঁপিয়ে পড়ল, তাকেও গ্রেফতারে কোন আগ্রহ দেখায়নি পুলিশ। অবস্থাদৃষ্টে মনে হয়, একটি হাড় ছুঁড়ে দেওয়া হয়েছে, আর সেটিকে কামড়াতে যখন কুত্তা এগিয়ে গেছে, তখনি তার পাছায় কশে বাড়ি মারা হয়েছে।

এই রিপোর্ট মোতাবেক নামদুটো সম্ভবত উত্তম বড়ুয়া ও আনছারুল হক ভুট্টো হবে।

তবে যাই হোক বিএনপি সমর্থকেরা বেশ বিশ্বাষযোগ্য তথ্য প্রমান হাজির করেছে, বলা যায়। দেখা যাক এবার সরকার বা আপনারা কি ধরনের রিপোর্ট পেশ করেন।

পাল্টাপাল্টি ব্লেমগেমে দুই দলের যার যার ফায়দা লোটা ঠিকই হয়ে যাবে,কিন্তু ম্যাংগো পাবলিকের অসহায় অবস্থান যেখানে ছিল সেখানেই থাকবে।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

ব্লগে যা লেখা হয় তা কি রেফারেন্স ? যতটুকু জানি রেফারেন্সের সুত্র ধরে ব্লগ লেখা হয়। আগেই কইছি অসাধারন উত্তর দিয়েন না সহজ সাধারন উত্তর দিয়েন। উপরে আপনে ফেসবুকীয় প্রমান এনে দেখালেন যেখানে নাম বিপ্লব বড়ুয়া। এইটা কি একটা বেকুবিয় রেফারেন্স হইল না?

পরের প্রশ্নের উত্তরও দিলেন না।

আপনের সাথে আমার পর্যবেক্ষনের পার্থক্য আছে,কিন্তু তার মানে এই না যে আপনেরে আমি বলদ মনে করি। আরেকবার সহজ প্রশ্ন করি উপরের দুইটা ছবির উপর কি আপনে আস্থা রেখে রেফারেন্স হিসেবে দাবী করেন ?

___________
জয় বাংলা,জয় বঙ্গবন্ধু


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

নাম বিভ্রাট নিয়ে আপনি এত উঠেপড়ে লাগলেন কেন ঠিক বোধগম্য নয়। নাম বিপ্লব বড়ুয়া না উত্তম বড়ুয়া, আনছার আলী না আনছারুল হক ভুট্টো তাতে কি এসে যায়! এ ধরনের একটা নয়, একই ধরনের বেশ কয়েকটি ছবি ( সঠিক নাম সহ) ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়েছে।

রামুর ঘটনায় পত্রিকা মারফত পড়লাম যে, পুলিশ নয়, সরকারী দল নয়, বিরোধি দল নয়, আশেপাশের সাধারন মানুষ বরং অসহায় বৌদ্ধ পরিবারগুলোর পাশে দাড়াবার চেষ্টা করেছে। পানি ছিটিয়ে আগুন নেভাবার চেষ্টা করেছে, নিজ বাড়িতে আশ্রয় দিয়েছে।তাই সময় এখন নিজেদের মাঝে তর্ক বিতর্কের নয়। বিএনপি/ জামাতের দুঃশাশন, মৌলবাদী ভুমিকা আমরা দেখেছি, এখন দেখছি আওয়ামিলীগের দুঃশাশন ও মৌলবাদি ভুমিকা।আওয়ামিলীগ ও বিএনপি যে একই মুদ্রার এপিঠ ওপিঠ এই বিষয়ে একমত হবার সময় কি ম্যাংগোপিপলের এখনও হয়নি?


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

তবে যাই হোক বিএনপি সমর্থকেরা বেশ বিশ্বাষযোগ্য তথ্য প্রমান হাজির করেছে, বলা যায়।
কথাটা কার?

যেই ছবিগুলোরে আপনে রেফারেন্স আকারে দিলেন সেইগুলাতে নামটা পর্যন্ত ভুল সেইটারে সহীহ হিসেবে বিশ্বাসযোগ্য হিসেবে কেমনে কন?

___________
জয় বাংলা,জয় বঙ্গবন্ধু


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

রাত ১০টার পরে রামুর মত প্রত্যন্ত একটি উপজেলা সদরে ১০ হাজার লোকের মিছিল বের করা স্থানীয় বাসিন্দারের পক্ষে সম্ভব নয়, যদি না তারা বড় কোনো রাজনৈতিক দলের পক্ষে হয়ে থাকে।
উপরের ফটো যদি সত্যি হয়ে থাকে (মনে হচ্ছে সত্য) তাহলে ঘটনার যোগসূত্র খুঁজতে বেশি বেগ পেতে হবে না। তাছাড়া
ঘটনার সাথে জঙ্গি বা বিএনপি'র কানেকসন থাকার সরকারি প্রচার সর্বৈব মিথ্যা বলেই প্রতিপন্ন হবে।
বর্তমানে পুলিশের গতিবিধি ও তদন্তে ঢিলেঢালাভাব দেখে মনে হচ্ছে, এটি বেশিদূর গড়াবে না, অচিরেই এটি থেমে যাবে। বরং সরকার বেশিদূর না গিয়ে মন্দির-প্যাগোডা নির্মাণেই বেশি মনোযোগ দিবে এবং এভাবেই ঘটনার সমাপ্তি ঘটবে।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

খুব ভালো উদ্যোগ, সাধুবাদ জানাই।

===============================
তার আঁখি দুটি ছলছল মৃদু হাসি বদন খানায়
দেখলে যায় রে চেনা।
মহা ভাবের মানুষ হয় যে জনা ......


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

চমৎকার পদক্ষেপ ।

============================
( কে আমার হাত থেকে ফূল নিবে ? )


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

সাহসী উদ্যোগ। সফল হোক, এই কামনা করি।

__________________________________
শোনহে অর্বাচিন, জীবন অর্থহীন.............


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

সাধারন মানুষ এগিয়ে আসুক।
সমর্থন থাকলো।

_____________________

ক্ষুদ্র স্বার্থ ভুলে মুক্তির দাঁড় টান।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

এই দেশের সরকারি তদন্তে মানুষের আস্থা সামান্য। আপনাদের উদ্যোগ সফল হোক।
------------------------------------

আমি আমার ভেতরে প্রতিনিয়ত বংশবৃদ্ধি করছি
যেমনটি করে থাকে অকোষী জীব হাইড্রা ।
বিলুপ্ততা ঠেকানোর কিংবা টিকে থাকার লক্ষ্যে নয়
নশ্বরতা আবিস্কারের লক্ষ্যে।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

আসলেই দরকার।

~-^
উদ্ভ্রান্ত বসে থাকি হাজারদুয়ারে!


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

নিজের মূল্যবান সময় ও গাঁটের টাকা খরচ করে মহৎ উদ্যোগ নিয়েছেন, কামনা করি আপনাদের এই সাহসী উদ্যোগ সফল হোক। সুদূর ইংল্যান্ড থেকে আপনাদের সাথে শারিরিক শ্রম দেয়া সম্ভব নয়, মনের সমর্থন জানিয়ে দিলাম। কিছু পরামর্শ-

- তদন্ত করবেন নিরপেক্ষভাবে।
- সাক্ষী বা বক্তার জন্য বা কারো প্রতি আপনাদের মনে কোনপ্রকার সফটকর্ণার থাকতে পারবেনা। অর্থাৎ সাক্ষী কোন দলের, মতের, ধর্মের বা ভাষার তা বিবেচ্য হতে পারেনা।
- তদন্ত কনসেপচুয়াল আইডিওলজি ব্যবহার বা ষ্টেরিওটাইপড এটিচিউড মুক্ত হতে হবে। অর্থাৎ সাক্ষীর পোষাক-পরিচ্ছেদ, চেহারা ভাবভঙ্গি আপনাদের মনে কোন প্রকার ইনফ্লুয়েন্স ফেলতে পারবেনা।
- সাক্ষীর নিরাপত্তার গ্যারান্টি দিতে হবে। এতে সাক্ষী স্বতঃস্ফুর্তভাবে খোলা মনে ঘটনার বিবরণ দিতে পারবে।
- প্রয়োজনবোধে এক সাক্ষীর কাছে একাধিকবার গিয়ে একই প্রশ্নের বা একই কথার বিবরণের পুনরাবৃতি করতে পারেন। এতে স্টেইটমেন্ট টুইষ্টিং বা তথ্য-বিভ্রান্তি ধরা পড়ে।
-তদন্তের খাতিরে বক্তা বা সাক্ষীকে বুঝতে দিতে হবে যে, আপনারা তার কোন কথা বা কাজের বিরোধী নন, এতে সে মনের গোপন কথা প্রকশ করতে কমফোর্টেবল ফিল করবে।
-ওডিও-ভিডিও থাকলেও কাগজ-কলমে ষ্টেইটমেন্ট লিপিবদ্ধ করে রাখা ভাল।
- একজন সাক্ষীর প্রত্যেকটা ভাষ্য বা কথার সত্যতা যাচাইয়ে, আলাদা জায়গায় গিয়ে নিজেদের মধ্যে আলোচনা-পর্যালোচনা করে শেষ সিদ্ধান্ত নিবেন।

ফলাফল যাহাই হউক, আশা করি আপনারা সঠিক সত্যটাই বের করে আনতে পারবেন। তদন্তের রিপোর্ট জানার অপেক্ষায় রইলাম।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

আশা করি আপনারা সঠিক সত্যটাই বের করে আনতে পারবেন। তদন্তের রিপোর্ট জানার অপেক্ষায় রইলাম।

-
একবার রাজাকার মানে চিরকাল রাজাকার; কিন্তু একবার মুক্তিযোদ্ধা মানে চিরকাল মুক্তিযোদ্ধা নয়। -হুমায়ুন আজাদ


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

আজ আট তারিখ, তদন্তদলের আপডেট কতদুর?

glqxz9283 sfy39587p07