Skip to content

‘আমার চিন্তা করো না, পালাও’ মধুসূদনের স্ত্রী (সাঈদীর যুদ্ধাপরাধ)

ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

যুদ্ধাপরাধের মামলায় অভিযুক্ত দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিতে এসে বুধবার আদালতে কান্নায় ভেঙে পড়েন অশীতিপর মধুসূদন ঘরামী, যিনি একাত্তরে ধর্মান্তরিত হয়েও রক্ষা করতে পারেননি স্ত্রীর সম্ভ্রম।

অসুস্থ মধুসূদনকে বুধবার সকালে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে নিয়ে আসার পর চিকিৎসকের উপস্থিতিতে ‘সিক বেডে’ শুয়ে সাক্ষ্য দেন তিনি। এ সময় তার গায়ে কম্বল জড়ানো ছিলো।

এ মামলার ২৩তম সাক্ষী হিসেবে জবানবন্দিতে মধুসূদন ট্রাইব্যুনালকে বলেন, একাত্তরে দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী পরিচিত ছিলেন দেলাওয়ার সিকদার নামে।

“কৃষ্ণ সাহা, ডা. গণেশ আর আমাকে মসজিদে বসিয়ে এই দেলাওয়ার মুসলমান বানায়। তখন আমার নাম রাখে আলী আশরাফ, কৃষ্ণ সাহার নাম হয় আলী আকবর।”ধর্মান্তরিত হয়েও বাঁচতে পারেননি কৃষ্ণ সাহা। কয়েকদিন পর তাকে হত্যা করে রাজাকার বাহিনী, যে সংগঠন গড়ে উঠেছিল সাঈদীর নেতৃত্বে।“অথচ দেলাওয়ার বলেছিল, ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করলে কাউকে মারা হবে না”, যোগ করেন তিনি।

একাত্তরে তিন হাজারেরও বেশি নিরস্ত্র ব্যক্তিকে হত্যা বা হত্যায় সহযোগিতা, অন্তত নয় জনকে ধর্ষণ, বিভিন্ন বাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে অগ্নিসংযোগ, লুটপাট, ভাঙচুর এবং একশ থেকে দেড়শ হিন্দুকে ধর্মান্তরে বাধ্য করার অভিযোগ রয়েছে সাঈদীর বিরুদ্ধে, যাকে একাত্তরে তার এলাকার লোকজন ‘দেইল্লা রাজাকার’ নামে চিনতো।

একাত্তরে নিজে ধর্মান্তরিত হয়েও স্ত্রীর সম্ভ্রম বাঁচাতে পারেননি মধুসূদন। যুদ্ধ শেষে তার স্ত্রী একটি শিশুরও জন্ম দেন। সন্তানদের নিয়ে স্ত্রী ভারতে চলে যাওয়ার পর একা দেশে রয়ে গেছেন আশি পেরুনো এই বৃদ্ধ।

ট্রাইব্যুনালে তিনি বলেন, “একদিন বিকেলে ঘরে এসে জানতে পারি ৪টা কি সাড়ে ৪টার দিকে বাড়িতে রাজাকাররা এসেছিলো। স্ত্রী আমাকে বলে, ‘তোমাকে যে (সাঈদী) মুসলমান করেছিলো সে এসেছিলো। আমাকে ধর্ষণ করা হয়েছে, এর বেশি আমি বলতে পারছি না। আমার চিন্তা করো না, তুমি পালাও।’”

সিক বেডে শুয়ে জবানবন্দি দেওয়ার সময় এ পর্যায়ে এসে বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েন সাঈদীর রাজাকার বাহিনীর নির্মমতার শিকার মধুসূদন। তার দুই চোখ দিয়ে তখন অশ্র“ ঝরছিলো। মধুসূদনের কান্নায় স্তব্ধ এজলাসকক্ষে অনেকের চোখই ভিজে ওঠে তখন।

মধুসূদন আবার থেমে থেমে বলতে শুরু করেন। বলতে থাকেন জীবনের সবচেয়ে কঠিন সত্য।

“যুদ্ধ শেষে আমার স্ত্রীর একটি কন্যা সন্তান হয়। আমি তার নাম রাখি সন্ধ্যা। স্ত্রীকে লোকজন গঞ্জনা দিলে, অপবাদ দিলে আমি আমার শ্যালককে বলি কি করবা? তখন শ্যালক বলে, ভারতে নিয়ে যাই। কিছুদিন পর আমার স্ত্রী ও মেয়েকে নিয়ে শ্যালক ভারতে চলে যায়। এরপর থেকে তাদের সঙ্গে আমার আর দেখা হয়নি।” এ কথা বলে আবারও কন্নায় ভেঙে পড়েন মধুসূদন ঘরামী।

জবানবন্দির সময় প্রসিকিউশনের আইনজীবী অ্যাডভোকেট রানা দাশগুপ্ত মধুসূদনকে বিভিন্ন প্রশ্ন করেন। পরে আসামিপক্ষের আইনজীবী মিজানুল ইসলাম ও মঞ্জুর আহমেদ অনসারী তাকে জেরা করেন।

মন্তব্য


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

শরিয়া আইন মোতাবেক প্রতিটি অভিযোগের বিচার যেন হয়।হাতের বদলে হাত, খুনের বদলে খুন, ধর্ষণ এর বদলে ধর্ষণ,,,,,,,,,,,,
আমি নিজেকে নি্য়ে খুব লজ্জআ বোধ করি। এই মানুষগূলোকে আমাদের দেশে নেতা বানিয়েছি?আমরা ছি পাবারো যোগ্য কি?

এ দেশের মাটিতে কবর যদি পায় রাজাকার মাটি কাদিয়া উঠিবে দাবি নিয়ে সকল বিগত আত্মার । বাংলার মাটি বাংলার লাগি, বাংলা যে আমার সে মাটিতে কবর যেন পায় না কোন রাজাকার । তারিখ ১৫/০৯/১২


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

শরিয়া আইনে কয় আল্লাহর জন্য প্রয়োজনে এক মেয়েকে কয়েকবার ধর্ষণ কর ! @ কল্লোল

.................................................
প্রাচীরের ছিদ্রে এক নাম গোত্রহীন
ফুটিয়াছে ছোট ফুল অতিশয় দীন
ধিক্ ধিক্ বলে তারে কাননে সবাই
সূর্য উঠি বলে তারে “ভালো আছো ভাই ? ”


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

জবানবন্দির পর সাক্ষীকে জেরা করেন সাঈদীর কৌঁসুলি মো. মিজানুল ইসলাম ও মনজুর আহমদ আনসারী।

প্রশ্ন:যে মসজিদে নিয়ে গিয়ে আপনাক মুসলমান বানানো হয় সে মসজিদের ইমাম বা মুয়াজ্জিনের নাম বলতে পারবেন? উত্তর:স্মরণ নেই।

প্রশ্ন: মুসলমান হওয়ার পর কি আপনি লুকিয়ে থাকতেন? উত্তর: বাড়িতেই থাকতাম। কিন্তু কৃঞ্চ সাহাকে হত্যার পর আমি পালিয়ে বেড়াতাম।

প্রশ্ন:হোগলাবুনিয়ার ৯জন নিখোঁজ হওয়ার আগেই মুসলমান হয়েছিলেন? উত্তর: জ্বি।

প্রশ্ন:পাড়েরহাটে পিস কমিটি গঠন করে দানেশ মোল্লা, সেকান্দার সিকদার ও দেলোয়ার সিকদার যার পিতার নাম রসুল সিকদার? উত্তর: জ্বি।

প্রশ্ন: এর সঙ্গে রাজ্জাক রাজাকার ও মোসলেম মাওলানাও ছিল? উত্তর: হ্যাঁ।

প্রশ্ন: রাজ্জাক রাজাকার ও দেলোয়ার সিকদার যার পিতা রসুল সিকদার; এদেরকে স্বাধীনতার পরে মুক্তিবাহিনী এলাকার লোকজন মেরে ফেলেন? উত্তর: পিরোজপুরে হতে পারে।

প্রশ্ন: স্বাধীনতা যুদ্ধের পরে আপনার দেয়া অভিযোগে কাশেম মাস্টার ৬/৭ মাস জেল খাটেন? উত্তর: হ্যাঁ।

প্রশ্ন:কাশেম মাস্টারের বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল-আপনার স্ত্রীকে ধর্ষণ করার? উত্তর: না।

প্রশ্ন: আপনার সঙ্গে বিরোধের কারণে আপনার স্ত্রী শেফালী ঘরামী ভারতে চলে যান? উত্তর: সত্য নয়।

প্রশ্ন: আপনার কথিত মতে, একদিন বিকেলে চারটা সাড়ে চারটার দিকে আপনার ঘরে আপনার স্ত্রীর ধর্ষণের শিকার হওয়ার ঘটনা মিথ্যা?

উত্তর: সত্য নয়।
সূত্র:http://new.ittefaq.com.bd/news/view/73569/2012-02-02/2

রাজাকার দেলোয়ার শিকদারকে যদি মেরেই ফেলা হয় তাহলে সাক্ষি কার বিরুদ্ধে সাক্ষি দিতে এসেছে?

^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^
দালাল দেখলেই পিডা! ইন্ডিয়ান, পাকিস্তানি অ পশ্চিমা কইয়্যা কতা নাইক্যা।
|||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||||


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

পারফর্মেন্স ভালৈছে,তালি !!!

অট : এদ্দিন কই আছিলেন?

*****************************
আমার কিছু গল্প ছিল।
বুকের পাঁজর খাঁমচে ধরে আটকে থাকা শ্বাসের মত গল্পগুলো
বলার ছিল।
সময় হবে?
এক চিমটি সূর্য মাখা একটা দু'টো বিকেল হবে?


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

@ চাটগাইয়া, সাব্বাস বদ্দা !! লেখা গম হইছে। এসব ডেডাইয়ারা মুমিন মুসলমানের নামে সাক্ষী দিয়া ফাসাইয়া দিব, এইডা মানন ন জায়।
সত্যের সেনানীরা নিবে নাকো বিশ্রাম।

--------------------------------------------------------------------------------
ধর্ম হচ্ছে বিশ্বাস। বিশ্বাসে কোন যুক্তি প্রমাণের প্রয়োজন পড়েনা।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

চাঁটগাইয়া, তোর আব্বারে নিয়া যতই ফাল পাড়িস না কেন- ঝুলতে তারে হবেই

___________________
------------------------------
শ্লোগান আমার কন্ঠের গান, প্রতিবাদ মুখের বোল
বিদ্রোহ আজ ধমনীতে উষ্ণ রক্তের তান্ডব নৃত্য।।
দূর্জয় গেরিলার বাহুর প্রতাপে হবে অস্থির চঞ্চল প্রলয়
একজন সূর্যসেনের রক্তস্রোতে হবে সহস্র নবীন সূর্যোদয়।।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

টুপির থেকে বাহির কইরা যতই কোটি কোটি টাকা ঢালেন কোন লাভ নাই, আপনার গলার গামছা রাজকারগুলোর ফাঁসির দড়ি হিসেবে ভাবেন @ পাগলা চাঁটগায়া ।

.................................................
প্রাচীরের ছিদ্রে এক নাম গোত্রহীন
ফুটিয়াছে ছোট ফুল অতিশয় দীন
ধিক্ ধিক্ বলে তারে কাননে সবাই
সূর্য উঠি বলে তারে “ভালো আছো ভাই ? ”


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

হাসি পেলাম নাটক দেখে
,,,,,,,,,,,, Laughing out loud Laughing out loud Laughing out loud

'''''' Man is mortal.''''''''' so be all people careful.''''''''''''''''''''


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

আপাতত হাসতে থাক, শেষ হাসি কে হাসবে দেখা যাবে

___________________
------------------------------
শ্লোগান আমার কন্ঠের গান, প্রতিবাদ মুখের বোল
বিদ্রোহ আজ ধমনীতে উষ্ণ রক্তের তান্ডব নৃত্য।।
দূর্জয় গেরিলার বাহুর প্রতাপে হবে অস্থির চঞ্চল প্রলয়
একজন সূর্যসেনের রক্তস্রোতে হবে সহস্র নবীন সূর্যোদয়।।

glqxz9283 sfy39587p07