Skip to content

আল্লাহতালাহ দিছে--- সাবেক রাষ্ট্রপতি ইয়াজউদ্দিন !!!

ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

রাষ্ট্রের ধর্ম কখনই ইসলাম হতে পারে না । মৌলবাদ শিক্ষকের আওতায় পড়ে আমাদের দেশটাও মৌলবাদের দিকে ধাবিত হয়েছিল । একজন রাষ্ট্রপতি হিসেবে ইয়াজউদ্দিন সাহেব কীভাবে বিশ্বাস করতেন আল্লাহই সব বাকি সব মিথ্যা ।

বাংলাদেশের ইতিহাসে আলোচিত ঘটনা ওয়ান ইলেভেন নিয়ে মুখ খোলেননি প্রায় কেউই। সেকারণে নজিরবিহীন এক রাজনৈতিক সংকটের পটভূমিতে ২০০৭ সালের সেদিন কি ঘটেছিল বঙ্গভবনে, সামগ্রিক ঘটনাপ্রবাহে সশস্ত্রবাহিনীর ভূমিকাই বা কি ছিল এসব নিয়ে রয়েছে এখনও ধোঁয়াশা।

২০০৯ সালের ২৩ এপ্রিল বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল বাংলাভিশনে বাংলাদেশের সাবেক রাষ্ট্রপতি অধ্যাপক ড. ইয়াজউদ্দিন আহম্মেদ টকশোতে দেয়া কিছু আলোচনার সারসংক্ষপ নিচে:

প্রশ্ন: বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে সার্টিফিকেট বাণিজ্য হয়, এগুলোতে পড়াশোনা হয় না বলেও অভিযোগ রয়েছে?

ইয়াজউদ্দিন: অভিযোগটি সত্য নয়। এখানে পড়াশোনা হয় না, কথাটি ঠিক না। পড়াশোনা হচ্ছে নিজের কাছে।

প্রশ্ন: রাষ্ট্রপতি কীভাবে হলেন?

ইয়াজউদ্দিন: এটা আল্লাহতাআলাই করে দেন। এটা নিয়ে এত চিন্তিত হওয়ার কিছু নেই।

প্রশ্ন: গত দুটি বছর আপনার বিরুদ্ধে অনেক সমালোচনা হয়েছে, কিন্তু আপনি কোনো প্রতিক্রিয়া দেখাননি, এতে বোঝা যায় আপনি খুব সহনশীল, এ ব্যাপারে কিছু বলেন?

ইয়াজউদ্দিন: ওই যে বললাম সবই আল্লাহতালাহ দিয়েছেন। মূলত সহ্যশক্তি, আন্তরিকতা আল্লাহ তৈরি করে দেন।

প্রশ্ন: গত দু’বছরে আপনার বিরুদ্ধে সমালোচনা বেশি হয়েছে, বিশেষ করে এই সমালোচনা ওয়ান ইলেভেনকে কেন্দ্র করেই বেশি হয়েছে, আপনি যদি একটু বলেন?

ইয়াজউদ্দিন: আমি এগুলো বিশ্বাস করি না, সাত-আটবার এসব প্রচারণা হয়েছে। আমি বিশ্বাস করি না, একইভাবে রটানো হয়েছে। ওই যে বললাম, আল্লাহই দিয়েছে, সুতরাং কেউ করে দিয়েছে, এটা ঠিক নয়।

প্রশ্ন: জরুরি বিধিমালায় হয়তো গণগ্রেফতার হয়নি, কিন্তু গণহারে রাজনীতিকদের গ্রেফতার করা হয়েছে এবং সে মামলাগুলোও পরে টেকেনি। দুদক কি আপনার পরামর্শ নিয়ে কাজগুলো করেছিল?

ইয়াজউদ্দিন: আমি তো বলবো, আমার কথা ছাড়া কোনো কাজই হয়নি। আমি মনে করি, সেভাবে গ্রেফতারি পরোয়ানাও করা হয়নি।

প্রশ্ন: দুই নেত্রীকে গ্রেফতারের সময় আপনার পরামর্শ নেয়া হয়েছিল?

ইয়াজউদ্দিন: সেগুলোতো অফকোর্স নেয়া হয়েছে। দুই নেত্রীর বিষয়, আমার পরামর্শ ছাড়া কীভাবে হবে? যা হয়েছে তা অত্যন্ত নির্দ্বিধাতেই হয়েছে। এভাবে না হলে মাচ পিপল ক্ষতিগ্রস্ত হত, এটা কিন্তু হয়নি।

প্রশ্ন: ওয়ান ইলেভেন নিয়ে কিছু বলুন, এটা কি এমনিতেই ঘটেছিল? আপনার পক্ষ থেকে হয়েছে, নাকি সবকিছু রেডি ছিল শুধু কাগজে সই করতে বলা হয়েছে?

ইয়াজউদ্দিন: এসব জিনিস তো আলোচনা করতে এখানে আসেনি, এখানে আসছি কৃষি নিয়ে আলোচনা করতে, এগুলো পরে আলোচনা করা যাবে।

প্রশ্ন: নির্বাচনকে সুষ্ঠু করা নিয়ে সেদিন ১২টা থেকে ২টা পর্যন্ত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে বৈঠক করলেন, এর একটু পর ওইদিনই আপনার কাছে তিনবাহিনীর প্রধান এসেছিলেন, তারা কী বললেন আপনার সঙ্গে?

ইয়াজউদ্দিন: দেশের অবস্থার কথাই বলেছেন। এসময় আমিও তাদের সঙ্গে এগ্রি করেছি। এগ্রি না করলে এটা হতো না, এগ্রির মধ্যেই শুভ ফল করেছে এবং আমি চাই যেভাবে এটা হয়েছে তাতে শুভদিক সুন্দর রাখুক।

প্রশ্ন: আপনি সেদিন ভাষণ দিয়েছেন, এতে আপনি রাষ্ট্রের অভিভাবক হিসেবে অনেকগুলো কথা বলেছেন, এগুলোর মধ্যে রয়েছে‘অস্থির পরিস্থিতির মধ্যে আছি’। তাই যদি হয়, তাহলে এ বিষয়টি কি আগে আপনার বিবেচনায় আসেনি?

ইয়াজউদ্দিন: আমি যেটা বুঝি, এগুলো আল্লাহতালাহ করেছেন। সেই হিসেবে আমরা খারাপ কিছু করিনি।

এসময় সাংবাদিক ও কলামিস্ট বদরুদ্দিন ওমর ইয়াজউদ্দিনকে প্রশ্ন করেন, ১১ জানুয়ারি জরুরি অবস্থা জারি হয়েছে, প্রধান উপদেষ্টার পদ থেকে ইস্তফা দিলেন, এটা তিনি কীভাবে করলেন, এটা কি আল্লাহর কাছ থেকে নির্দেশনা পেয়েছিলেন না অন্যকিছু ?

ইয়াজউদ্দিন: যা করেছি বুঝেশুনেই করেছি। এগুলো নরমাল কাজের মতই করেছি। এছাড়া মানুষের ওপর আমার অগাধ বিশ্বাস আছে।

প্রশ্ন: কী বিশ্বাস?
ইয়াজউদ্দিন: ওই যে বললাম গ্রেফতারি পরোয়ানা।

প্রশ্ন: অবসর সময় এখন কেমন লাগে?

ইয়াজউদ্দিন: এখন খুব খারাপ লাগে। সত্যি কথা বলতে কী ওই সময়ে যত সুবিধা পেয়েছি তা এখন পাচ্ছি না। একবারে যে কর্মহীন ছিলাম তা না, আমরা সবসময়ই কর্মের মধ্যে ছিলাম। সুবিধাটুকু যদি প্রাপ্য হিসেবে থাকতো তাহলে আরো অনেক কাজ করতে পারতাম। আমি ওটাই হারিয়েছি বলে মনে করি।

প্রশ্ন: জরুরি বিধিমালার কি যৌক্তিক দিক ছিল?
ইয়াজউদ্দিন: এসব জিনিস যদি একটু পরে বলতেন তাহলে ভালো হত।

প্রশ্ন: এসব কি বইয়ের জন্য রাখছেন, আমাদের একটু জানান?
ইয়াজউদ্দিন: আমি চাই এগুলো বইয়ে থাকুক।

প্রশ্ন: গত দু’বছরের প্রেক্ষাপট একটু বলবেন কি?
ইয়াজউদ্দিন: আমার স্মরণ নেই, বই লেখার সময় হয়তো মনে পড়বে।

এসময় বদরুদ্দীন ওমর আবার টেলিফোনে ইয়াজউদ্দিনকে প্রশ্ন করে বলেন, আপনি সম্পূর্ণভাবে সংবিধান লঙ্ঘন করেছেন, এছাড়া আপনি যে প্রধান উপদেষ্টা হলেন, এটা কি আল্লাহতালা নির্দেশ দিয়েছেন নাকি সামরিক বাহিনীর পরামর্শে, না আমেরিকানদের কারণে হলো, এটা শিগগির বোঝা দরকার। বইয়ের জন্য অপেক্ষা করা অসুবিধাজনক।

ইয়াজউদ্দিন: না না দেরি করব না। শিগগিরই করবো।


প্রশ্ন: ১/১১ পট পরিবর্তনের সময় প্রধান উপদেষ্টার নিয়োগের ব্যাপারে আপনি কি আলোচনা করেছেন? আমরা জেনেছি ড. ইউনূস প্রধান উপদেষ্টা হবেন না জানিয়ে দিলে ড. ফখরুদ্দীনকে এই পদে নিয়োগ দেয়া হয়। এসব কাজ কার পরামর্শে করা হয়েছিল?
ইয়াজউদ্দিন: বিএনপি ও আওয়ামী লীগের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে বঙ্গভবনে আলোচনা হয়েছে।
সংগ্রহে: বিডি নিউজ ২৪.

মন্তব্য


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

ওনি আল্লার নির্দৈশ পাচ্ছেন । নবীটবি কিছু একটা হয়ে গেলেন নাকি?


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

ইয়েসউদ্দীন মনে হয় ওপর থেকে "ইয়েস" কার্ড পেয়েছিল

___________________
------------------------------
শ্লোগান আমার কন্ঠের গান, প্রতিবাদ মুখের বোল
বিদ্রোহ আজ ধমনীতে উষ্ণ রক্তের তান্ডব নৃত্য।।
দূর্জয় গেরিলার বাহুর প্রতাপে হবে অস্থির চঞ্চল প্রলয়
একজন সূর্যসেনের রক্তস্রোতে হবে সহস্র নবীন সূর্যোদয়।।


ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

মায়াগো ধর্ষণ করলেও মনে হয় ইয়াজউদ্দিন সাহেব কইতেন “আমার কি দোষ আল্লাহই করাইছে?”

.................................................
প্রাচীরের ছিদ্রে এক নাম গোত্রহীন
ফুটিয়াছে ছোট ফুল অতিশয় দীন
ধিক্ ধিক্ বলে তারে কাননে সবাই
সূর্য উঠি বলে তারে “ভালো আছো ভাই ? ”

glqxz9283 sfy39587p07