Skip to content

অপসংস্কৃতি ও মেটাল মিউজিক

ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

বাংলাদেশের মেটাল মিউজিক লাভার রা সারাজীবন কানে হেডফোন লাগিয়েই গান শুনে যাবে। তাদের সৌভাগ্য হবে না কখনো কোনো হাই লেভেলের ব্যান্ডের শো নিজ চোখে দেখার কিংবা তাদের গানের সাথে হেডব্যং আর মশপিট দেয়ার।
কারন বাংলাদেশ মেটাল মিউজিক সাপোর্ট করে না। সাপোর্ট করে আতিফ আসলাম,নেহা কক্কর,হানি সিং,উর্বশী রাওটালা এরা বাংলাদেশে ধুমায়া পারফর্ম করে যায়। কোনো প্রকার সিকিউরিটি সমস্যা হয় না। কোনো বাধা থাকে না। পাবলিক যায় ও এদের শো তে।
আর আমরা যারা মেটাল মিউজিক লাভার? তারা কি হানি সিংয়ের শোতে গিয়ে বসে বসে কলা খাবো?
২০১৬ সালের রকনেশন হতে দেয়া হলো না। কারণ দেখানো হলো সিকিউরিটি সমস্যা। কিন্তু ঠিকতার দুদিন পর ভারতের স্বনামধন্য আতিফ আসলাম এবং নেহা কক্কর একই জায়গায় একই স্টেজে পারফর্ম করে গেল। কোনো সিকিউরিটি সমস্যা হয় নি। তাদেরকে সিকিউরিটি দিয়ে ভরে রেখেছিল। রকনেশনের সময় সিকিউরিটি ছিল না।
Eluveitie আসলো। তাদের কনসার্টের টাকা মেরে দেয়া হলো। স্টেজে না উঠেই চলে গেল Eluveitie. তারপরও বলে গেল,বাংলাদেশ ভালো!
এবার আসলো আমাদের নাহিয়ান ভাইয়ার উদ্দ্যেগে ব্রাজিলিয়ান ডেথ মেটাল ব্যান্ড Krisiun ও Nervochaos. বাংলাদেশ সরকার তাদেরকে এতটা সম্মানিত করবে ভাবি নি তাদেরকে এয়ারপোর্ট থেকে বের হতে দেয়া হয় নি। পাসপোর্ট সিজ করে এয়ারপোর্টে আটকে রাখা হয়েছিল।এগুলো নাকি অপসংস্কৃতি। সানি লিওন,দীপিকা এসে দুধ নাভি বের করে পাবলিকের নিচে দাড়া করাই যাবে ওগুলো সংস্কৃতি। আর আমরা হেডব্যং দিতে চাইলে অপসংস্কৃতি
নাহিয়ান ভাই কে তার এতটা সাহসিকতার প্রমাণ দেয়ার জন্য সালাম ও ভালোবাসা ভাই কারন এতটুকু করার হেডমও কারোর থাকে না
সবশেষে একটাই কথা,বাংলাদেশী মেটাল মিউজিক লাভারদের প্রিয় ব্যান্ডগুলোর গান সারাজীবন হেডফোন আর সিডিতেই শুনতে হবে। সামনে দাড়িয়ে হেডব্যং আর মশপিট দেয়ার ভাগ্য হবে না

glqxz9283 sfy39587p07