Skip to content

স্মৃতিকথা

ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

"রাঙ্গিয়ে দিয়ে যাও যাও....................."



আজ 'দোল পূর্ণিমা' বা 'হোলি'। 'দোল' বা 'হোলি' হিন্দুদের এক পবিত্র উৎসব । নানান রীতিতে বাংলা এবং ভারতের সর্বত্র এই উৎসব পালিত হয়।

ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

একালের একুশ সেকালের একুশঃ শ্রদ্ধাঞ্জলি ভাষা শহীদদের



একুশের মিনার সম্ভবত একমাত্র স্মৃতির মিনার যার একক কোনো স্থপতি নেই। বায়ান্নোর ২৩ ফেব্রুয়ারি ঘাতকের রক্ত চক্ষুকে উপেক্ষা করে গড়ে উঠে প্রথম মিনার। বাঙালির স্মৃতির আকাশে আষাঢ় মধ্যাহ্নের মার্তণ্ড’র মতোই ছিল তেজদৃপ্ত এবং ক্ষণস্থায়ি। বায়ান্নোর ড্রাকুলারা শুধু প্রাণ নিয়েই, রক্ত পান করেই তৃপ্ত থাকতে পারে নি। ভেঙ্গে দেয় বাঙালির অশ্রু থেকে গড়ে উঠা প্রথম স্মৃতির মিনার দু’দিনের মাথায়।

ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

স্মৃতির কৌটো খুলে.......



এই সময়টা নর্থ আমেরিকা খুব উৎসব মুখর, বাতাসে ভেসে বেড়ায় কেমন এক খুশীর আমেজ। এ শুরু হয় "হলোইন" দিয়ে অক্টোবরের শেষে, এরপর নভেম্বরে আসে "থ্যাংকস গিভিং", তারপর ডিসেম্বরে "ক্রিসমাস"। নিউ ইয়ার পর্যন্ত চলে এই উৎসব উৎসব ভাব। বাড়ীর সামনে সামনে আলোক সজ্জা, অফিস আদালতে রিসেপসনিস্টদের দের লাল সাদা টুপি, সাজানো" ক্রিসমাস ট্রি, সর্বত্র চকলেট, ক্যান্ডি আর কুকিস এর ছড়াছড়ি, মলগুলোর ডিসপ্লেতে লাল-সাদা-সবুজ-সোনালী রঙের সমারোহ , স্পিকারে-এ অবিরাম বাজতে থাকে, " জিঙ্গেল বেল, জিঙ্গেল বেল ..", "টিজ দ্য সিজন টু বি জলি....", "সান্টা ক্লজ ইজ কামিং টু টাউন..." অথবা "..ওয়ানা উইশ ইউ এ মেরি ...."।

ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

বন্ধু আমার, বন্ধু কজন



সকালের ফেসবুক রাউন্ড শুরু করতেই বুঝলাম, আজ বন্ধু দিবস। সবার কার্ড, শুভেচ্ছা, শুভকামনায় ভরে আছে আমার ওয়াল। নিজে এতো ক্লান্তিতে ডুবে আছি যে ঠিকমতো কিছু ভাবতেও পারছি না। কিছু লিখতে ইচ্ছে করছে, কিন্তু লেখারা আমাকে ছেড়ে লঙ-ড্রাইভে গেছে গত কিছুদিন। অনেক ডেকেও ওদের সাড়া পাচ্ছি না। কিছু না করতে পারার কষ্ট নিয়েই বেড়িয়ে এলাম কাজের পথে। হ্যাঁ, আবারো উইক এন্ড কল করতে হচ্ছে । ছুটি থাকার কথা ছিল, কিন্তু বসের অনুরোধে ঢেঁকি গিলছি বলে মন-মেজাজ আরও খারাপ !

ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

একজন অরুন নন্দী ও একটি বিশ্বরেকর্ডের গল্প





১৯৭১-এর মাঝামাঝি একটা সময়। মুক্তিযুদ্ধের তখন উত্তুঙ্গ পর্যায়। প্রতিদিন শয়ে শয়ে মুক্তিযোদ্ধা ট্রেনিং শেষ করে জন্মভূমিতে ফিরে যাচ্ছেন মাকে মুক্ত করার প্রতিজ্ঞাপূরণে। কলকাতার বুকে শরণার্থীদের একজন অরুন নন্দী সিদ্ধান্ত নিলেন দেশের জন্য অন্যরকম কিছু করার। বন্দুক হাতে যুদ্ধ করার সামর্থ্য তার আছে। তবে তারচেয়েও বড় এক প্রতিভা দিয়েছেন তাকে ঈশ্বর। সাঁতার। অবিরাম সাঁতরে যাওয়ার বিরল ক্ষমতা। চাঁদপুরের ছেলে তিনি। পদ্মা-মেঘনার সঙ্গমেই সাঁতার কেটে মানুষ।

ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

‘সাঁঝের মায়া’ জন্মদিনে ‘উদাত্ত পৃথিবী’র শুভেচ্ছা

খুব গোপন গহিন নিশীথে, দুঃস্বপ্নের মাকড়ের জালের মতন ঝিল্লী আবরণ ভেদ করে যখন জেগে উঠি, অকারনেই পড়ে থাকা জানালার স্ফটিক-হিম ফ্রেম পেরিয়ে অস্তিত্বের এক কঙ্কাল হাত বাড়িয়ে দেয়; ঘু

ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

অম্ল মধুর: বিদেশী বাবা, দেশী বাবা


উইক এন্ড কল করছি, একাই তিন হাসপাতাল সামলাতে হয় এসময়। Friday সন্ধ্যা থেকে Monday সকাল পর্যন্ত। পেশেন্ট খুব বেশী না থাকলেও দূরত্বের জন্য ড্রাইভেই অনেক সময় লেগে যায় তাই দিনের শেষে বিধ্বস্ত অবস্থায় বাড়ী ফিরি, আজো তাই।

ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

সোনালি হরিণ 'আসাদের শার্ট': চেতনার প্রতীকের শুভ জন্মদিন



বহুবার উল্টানো বইয়ের পাতার মতন, অতীতের বিদেহী প্রেতাত্মার মতন, আমি ঘুরে বেড়াই-ঘুরে বেড়াই পিচঢালা পথজুড়ে, খাঁ-খাঁ রোদ্দুরে, আসাদ গেট থেকে নগ্নপদে হেঁটে হেঁটে যাই ঢাকা মেডিক্যাল এর চত্বর অবধি, আমার কোমল ত্বক পুড়ে কালো ছাই, অস্থি-মজ্জায় তীব্র-তুখোড় বিদ্রোহের সুর টণটণ করে বেজে ওঠে তবু আমি হেঁটে যাই, হেঁটে যাই, উত্তর থেকে দক্ষিণ, দক্ষিণ থেকে উত্তরে, আমার হারিয়ে যাওয়া আত্মার খোঁজে, স্তিমিত-অলস টিকটিক তেলাপোকার মতন বেঁচে থাকা কিংবা মরে যাওয়া হৃদয়টা এইখানে, ঠিক এইখানে; ঢাকা মেডিকেলের জরুরী বিভাগের সামনে এসে থমকে যায়, স্তব্ধ হয়ে যায়,

ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

আজি প্রণমি তোমারে....


২৫শে বৈশাখ এলেই একটু থমকে দাঁড়াই প্রতিবছর, স্তব্ধ হয়ে রই কয়েকটি মুহূর্ত, কান পাতি হৃদয়ের গভীরে.........., সেখানে সীমাহীন নৈশব্দ। তোমায় ছাড়া কবে বানী পেয়েছে আমার নির্বাক অনুভব! আমার প্রকাশ তো তোমাকে আধার করে, তোমার গদ্য, তোমার কবিতা, তোমার গান------; ভাষা দিয়েছে আমায়। তোমার হাত ধরে পেড়িয়ে এসেছি কতো অন্তবিহীন পথ.......!

ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

তুমি এবং আমি পর্ব ১০

" এই দু'টো চোখের ভেতর দিয়ে সাজাই কতো গল্প একবার ভেবে দেখো,
তুমি কোন রকমে অস্বস্তিজনক সময় পার করছো আমার অপেক্ষা করে, আমি অল্প দেরি করায় তুমি কতোটা ম্লান মুখ করে অভিমানে গাল ফুলিয়ে চোখ অন্য

Syndicate content
glqxz9283 sfy39587p07