Skip to content

যুদ্ধাপরাধ ও ট্রাইব্যুনাল

ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

নর্দার্ন ইউনিভার্সিটি কেলেঙ্কারী: দায়ী কে?

সমস্যা:

নর্দার্ন ইউনিভার্সিটির খুলনা ক্যাম্পাসের আইনের শিক্ষক রাজিব হাসনাত শাকিলের বিরুদ্ধে অভিযোগ, সে দেওয়ানী কার্যবিধির ধারা ১০ পড়াতে গিয়ে -

১) কাদের মোল্লার ফাঁসিকে অবৈধ বলেছে,
২) শেখ হাসিনাকে নাস্তিক বলেছে,
৩) বঙ্গবন্ধুকে ফেরাউন বলেছে,
৪) রাষ্ট্রপতিকে বটতলার উকিল বলেছে।

প্রথম কথা হলো, একজন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকের পক্ষে কি এই কথাগুলো বলা সম্ভব? দুর্ভাগ্যজনকভাবে, এটা সত্য যে, এ কথাগুলো বলা খুবই সম্ভব। এজন্য এমনকি হার্ডকোর জামায়াতিও হওয়ার দরকার হয় না, মোটামুটি লেভেলের সুশীল হইলেও চলে। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পরে অনেক গোষ্ঠীরই চরম সর্বনাশ হয়েছে। বুয়েট শিক্ষকও হায়েনা হাসিনার মাথা কেটে বুয়েট গেটে টানিয়ে রাখার বয়ান দিয়েছে।

ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

শহিদুল হক মামার সাক্ষাৎকার।



শহিদুল হক মামা। ১৯৭১ সালের বীর মুক্তিযুদ্ধে যিনি সরাসরি যুদ্ধ করেছেন। গেরিলা বাহিনীর বিভিন্ন গুরুত্বর্পূণ কাজে তিনি সক্রিয়ভাবে জড়িত ছিলেন। মিরপুরে কাদের মোল্লা ও বিহারীদের নির্মম ধ্বংসলীলা তিনি নিজ চোখে দেখেছেন। এছাড়াও তিনি ৬৬, ৬৯ গণঅভ্যুত্থানে সরাসরি জড়িত ছিলেন। মিরপুর তিনিই বিহারীদের সামনে পাকিস্তান পতাকা নামিয়ে ছুড়ে ফেলে দিয়েছিলেন সাহসের সঙ্গে। শহিদুল হক মামা কাদের মোল্লার বিরুদ্ধে মানবতা অপরাধ ট্রাইব্যুনালে সাক্ষ্য দিয়েছেন এছাড়াও যুদ্ধাপরাধী ফাঁসির দাবীতে শাহবাগ চত্ত্বরের আন্দোলনে তিনি যোগ দিয়েছেন। এই সাক্ষাৎকারে তিনি সরকারের দূর্বলতা সসর্ম্পকেও স্পষ্টভাবে কথা বলেছেন। সেই অকুতোভয় মানুষটিকে সবাই মামা বলেই ডাকে। বর্তমানে তিনি সুইডেনে বসবাস করছেন।

ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

জামাতের কাছে বিক্রি হওয়া একজন অর্থলোভী কাদের সিদ্দিকীর দুর্নীতির কিছু প্রমান।

১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে কাদের সিদ্দিকীর ভুমিকা নিয়ে কোন কথা বলার প্রয়োজন নাই। ঐ সময় আমরা সবাই জানি তার ভুমিকা। ঐ সময়ের ভুমিকায় তিনি আসলেই একজন বঙ্গবীর এতে কোন সন্দেহ নাই। কিন্তু তার বর্তমান ভুমিকাতে এই কথা টাই সত্য প্রমানিত হয়, "রাজাকার সবসময়ের জন্য রাজাকার, কিন্তু মুক্তিযোদ্ধা সবসময়ের জন্য মুক্তিযোদ্ধা নয়"।

ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

তাহরীর নয়, শাহবাগ…



ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ঢাকা শহরকে বিচ্ছিন্ন করেছে যে জায়গাটা, সেটা এখন চৌরাস্তা। নবাবী আমলের বাগিচার নামে নাম। শাহবাগ। নিমতলী থেকে কলাভবন যখন এখনকার জায়গায় স্থানান্তর হলো তখন থেকেই যে কোনো আন্দোলনের ব্রেকিং পয়েন্ট। এখানেই পুলিশি বেরিকেড পেরিয়েই ১৪৪ ধারা ভাঙা। পঞ্চাশের দশক থেকে স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলন পর্যন্ত শাহবাগ একটি রণাঙ্গনের নাম। এবং আশির দশকের শেষ ভাগে একটা দীর্ঘ সময় এখানে মিশুক নামে একটা হরিণছানার ভাস্কর্য ছিলো। সেখানে বিপ্লবীদের কেউ একজন লিখে দিয়েছিলো ‘গাধা এরশাদ’। সাদা খড়ির সেই চিকাটিও ছিলো পথযাত্রীদের ব্যাপক বিনোদন।

ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

বেগম জিয়ার ঘষেটি সিন্ড্রম : পরাশক্তিগুলোকে সরকার উৎখাতের আবেদন!



ধারনা করি বেগম খালেদা জিয়া ব্যাপক অস্থিরতায় ভুগছেন। ক্ষমতায় যাবার অস্থিরতা। যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের প্রথম কিস্তির রায় সমাসন্ন।যুদ্ধাপরাধের দায়ে তার ক্ষমতাধর মিত্র জামায়াতে ইসলামীর নেতাদেরই শুধু নয়, গোটা দলটির রাজনৈতিক মৃত্যুও মোটামুটি নিশ্চিত হয়ে যাচ্ছে। আইনগতভাবে যখন কোনো দলের শীর্ষ নেতৃত্ব যুদ্ধাপরাধী বলে অভিযুক্ত হয় তখন তাদের জনসমর্থনে ভাটা পড়তে বাধ্য। তার প্রভাব ভোটেও পড়বে।

ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

লন্ডনে তুর্কি দুতাবাসের সামনে ২১ সংগঠনের প্রতিবাদ কর্মসূচী ও স্মারকলিপি প্রদান


বাংলাদেশে চলমান আন্তর্জাতিক অপরাধের বিচার কার্যক্রমের সহায়ক শক্তি হিসেবে ছাত্র শিক্ষক পেশাজীবী এবং বিশেষজ্ঞদের নিয়ে ১৩ সংগঠনের আন্তর্জাতিক জোট "ইন্টারন্যাশনাল ক্রাইমস স্ট্র্যাটেজি ফোরাম" (আইসিএসএফ) এর আহ্বানে আজ ১৬ জানুয়ারী ২০১৩ লন্ডনে তুর্কী দূতাবাসের সামনে মুক্তিযুদ্ধ এবং বিচারের পক্ষের ২১ সংগঠনের এক সম্মিলিত প্রতিবাদ কর্মসূচী পালিত হয়।

ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

ফ্যাসিবাদী তুরস্ক, তোমার এম্বেসি গোটাও



ফটোঃ তুরস্কের জাতীয় পতাকা পোড়াচ্ছে কুর্দির নিপীড়িত স্বাধীনতাকামীরা।
-

একটা সত্যি কাহিনী দিয়ে শুরু করি। ১৯৭১ সালের জুন মাসের শেষ সপ্তাহ। ব্রাম্মনবাড়িয়ার তরুণ সার্কেল অফিসার ( বর্তমান টিএনও সমান থানা নির্বাহী পদাধিকারী) মোহাম্মদ আবদুল্লাহ ছুটি নিয়েছেন, সিলেটে নিজের বাড়িতে ফিরবেন কয়েকদিনের জন্য। পরেরদিন তিনি বাড়ি ফিরবেন, কারণ তাঁর ছেলের জন্ম হয়েছে বলে টেলিগ্রাম এসেছে, ছেলের মুখ দেখতে যাবেন। গভীর আনন্দ তাঁর মনে। যথারীতি ট্রেনে করে রওনা হয়েছেন পরদিন দুপুরে। হঠাৎ এক গ্রামের পাশে আটকে গেল ট্রেন। খবর নিয়ে জানা গেল পাকিস্তানী মিলিটারীরা এই ট্রেন আটকে দিয়েছে। ট্রেন চেকিং হবে।

ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

বাংলাদেশ : একটি চলমান গণহত্যার ইতিবৃত্ত

১.
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ নামের রাষ্ট্রটির জন্ম ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ প্রথম প্রহরে; বিস্ফোরণ, বারুদ আর রক্তের ফোয়ারার ঠিক মাঝখানে। ভূমিষ্ট হবার পর নয়টি মাস অপেক্ষা করতে হয়েছে তাকে - বিশুদ্ধ বাতাসে নিঃশ্বাস নিতে। এই নয়টি মাস ভুলে যাবার নয়, এই নয় মাসে বাংলাদেশের ভূখণ্ডে যা ঘটেছে তাকে গিনেস বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ড বিবেচনা করেছে বিশ শতকের সবচেয়ে নৃশংস পাঁচটি গণত্যার একটি হিসেবে, জাতিসংঘের হিসেব অনুযায়ী এই হত্যার মাত্রা ছিল প্রতিদিনে ছয় হাজার থেকে বারো হাজার মানুষ যার সামষ্টিক পরিমান তিরিশ লক্ষ কিংবা তার চেয়েও বেশি। এই নয়টি মাসে ধর্ষণ এবং আরো অসংখ্য ধরণের শারীরিক ও যৌন নির্যাতনের শিকার হয়েছেন প্রায় সাড়ে চার লক্ষ বাঙালি নারী। গণহত্যা কিংবা মানবতাবিরোধী অপরাধের মতো বিশ্বজুড়ে ঘৃণ্য অপরাধগুলোর যতগুলি প্রকরণ রয়েছে তার প্রায় সবক'টি সংঘটিত হয়েছে ১৯৭১ সালের মার্চ থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত সময়ে।

ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বানচালের ষড়যন্ত্র রুখে দিন



গতকাল আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারপতি নিজামুল হক নাসিম পদত্যাগে উদ্ভুত পরিস্থিতিতে ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করতে চাইছেন, রাজাকার দোসর আইনজীবি ব্যারিষ্টার রাজ্জাক এবং ব্যারিষ্টার মউদুদ। একজন বলছেন বিচার বন্ধ করতে হবে অন্যজন বলছেন পুনঃবিচার করতে হবে। যে আইনটিতে বিচার হচ্ছে আসুন দেখি সেই আইনটি কি বলে, ...

ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

যুদ্ধাপরাধ ট্রাইবুনাল ও আন্তর্জাতিক আইন - ভুমিকা ও জুরিসডিকশন

যুদ্ধাপরাধীদের বিচার নিয়ে আমি কিছু বলবো না আমার এই লেখা সম্পূর্ণই অন্য এক পয়েন্টে। ইদানীং বেশ শোর উঠছে যে আমাদের ট্রাইবুন্যাল হচ্ছে এই ট্রাইবুনাল কি যথাযথ কিনা। আসুন দেখি আইন কি বলে বিভিন্ন দেশে কিভাবে বিচার হয়েছে বা হচ্ছে। ট্রাইবুনালই বা কিভাবে হচ্ছে বা কারা করছে।

Syndicate content
glqxz9283 sfy39587p07