Skip to content

আইন

ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

কোচিং এর ক্ষতি এবং অন্যান্য

(১)

তানিম এবারে পঞ্চম শ্রেণিতে উঠেছে। বছরের প্রথম থেকেই বাবা-মায়ের
পরিকল্পনা অনেক। কোন কোচিং ভালো, কোনখানে ভালো পড়াশুনা করানো হয়, তার
খোঁজ করে রেখেছেন তানিমের বাবা, তামিউর রহমান। বছরের শুরু থেকেই বেশ
তোড়জোড় নিয়ে কোচিং করতে ব্যাস্ত ছিল তানিম। অথচ অর্ধবার্ষিক পরীক্ষায় তার
ফলাফল তেমন আশানুরূপ হয় নি। বাবা-মায়ের চিন্তা আরো বেড়ে যায়! এত গুলো
কোচিং-প্রাইভেট দিয়েও সন্তানের এমন রেজাল্ট হলে, বাবা-মায়ের মন খারাপ
হওয়াও স্বাভাবিক। এবিষয়ে স্কুলের শিক্ষকের সাথে কথা বলেন তামিউর রহমান।
শ্রেণি শিক্ষক জিজ্ঞাসা করেন, তানিম বাসায় কতক্ষণ পড়াশুনা করে? তামিউর
রহমান বলেন, বাসায় তো সেরকম পড়ে না, সে তো সারাদিন কোচিং নিয়েই ব্যাস্ত।
শ্রেণি শিক্ষক তখনি তামিউর রহমানের মনের ধারণা বদলিয়ে দেন। বলেন, সারাদিন
যতগুলো কোচিং করে সে সময় নষ্ট করেছে, সে সময় যদি বাসায় পড়তো, তবে আজ তার
এরূপ ফলাফল হত না। তামিউর রহমান পরে নিজের ভুল বুঝতে পারেন। তানিমকে
সেদিন থেকেই কোচিং বাদ দিয়ে বাসায়-স্কুলে পড়াশুনা করার নির্দেশ দেন।
তানিমের রেজাল্ট ধীরে ধীরে ভালো হতে শুরু করে। এখন তানিম শুধু পড়াশুনার
মাঝেই সীমাবদ্ধ নেই। সে তার প্রতিভা বিকশিত করছে, বিভিন্ন প্রতিযোগিতায়
অংশ নিচ্ছে, পুরুষ্কার পাচ্ছে।

(২)

বাংলাদেশের পেক্ষাপটে, কোচিং বাণিজ্য অত্যন্ত লাভজনক একটি পেশা। এই
পেশাতে কোনো বিনিয়োগ লাগে না। শুধু লাগে বুদ্ধি, প্রতারণার জাল। প্রথম
প্রথম ফ্রি পড়িয়ে বেশ নামডাক কামিয়ে তারা তাদের বাণিজ্যকে স্বর্গ বানিয়ে
ফেলে। অধিকাংশ বাবা-মায়ের মতে, কোচিং এ গেলে তাদের ছেলে-মেয়ে সুশিক্ষিত
হবে, অধিক জানবে, পরীক্ষায় ভালো করবে। ছেলে-মেয়েরাও বাধ্য হয়ে কোচিং যায়,
পরীক্ষায় ভালো ফলাফল করে ঠিকই, কিন্তু তারা সুশিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে গড়ে
উঠে না, তারা জ্ঞানার্জন করতে সক্ষম হয়ে উঠে না, তারা সাহিত্যজগৎ নামক
আনন্দদায়ক একটি জগত ছেড়ে পুরোপুরি যান্ত্রিক একটি অবস্থায় চলে আসে। প্রায়
প্রতিটি কোচিং সেন্টার নোট প্রদান করে, এই নোট শিক্ষার্থীরা গিলে মুখস্থ
করে পরীক্ষা দেয়। আবার কখনও কখনও বোর্ড প্রশ্ন ফাঁসের পেছনে এসব কোচিং
সেন্টারগুলো গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই কোচিং
সেন্টারগুলোর বিরুদ্ধে কোনোরূপ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয় না, ফলে এরূপ
নেতিবাচকঅবস্থা আরো বৃদ্ধি পায়। সৃজনশীল এই জগতে, এই শিক্ষা পদ্ধতিতে যখন
একজন শিক্ষার্থী নিজের মেধা অনুযায়ী, নিজের জ্ঞান অনুযায়ী প্রশ্নের উত্তর
লিখবে, ঠিক তখনি কোনো কোনো শিক্ষক তাদের নোট দিয়ে বলছেন, এর বাহিরে লিখলে
তোমাদের নাম্বার কাটা! আবার কোনো কোনো শিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিযোগ, তারা
স্কুলে পড়ায় না, আবার তাদের কাছে কোচিং না করলে ঠিকভাবে নাম্বার দেয় না।
এই যদি হয় বাস্তবতা, তবে কোচিং বিহীন শিক্ষাব্যবস্থা কতদিনে আমরা অর্জন
করবো?

(৩)

গতকাল রংপুরের একটি নামীদামী স্কুলে ক্যামেরা নিয়ে ঢুকলাম। আমি সাংবাদিক,
এই পরিচয় পেয়ে অনেক মহিলা নিজেদের হ্যান্ডব্যাগ থেকে মেকাপবক্স বের করে
রূপচর্চা করা শুরু করে দিলো। কিছুক্ষণপর যখন স্কুল ছুটি দিল, একেএকে
শিক্ষার্থীরা বেড়িয়ে আসছে। আমি তাদের একজনকে জিজ্ঞাসা করলাম, সাতজন বীর
শ্রেষ্ঠের নাম বলো? সে মাত্র দুই জনের নাম বলেই থেমে যায়। আশেপাশের
কয়েকজনকে জিজ্ঞাসা করেও সঠিক ভাবে সাতটি নাম পাওয়া যায় নি। অথচ তারা ছিল
দশম শ্রেণি, কেউ নবম শ্রেণির ছাত্র। অভিভাবকরাও ধীরেধীরে দূরে সরে যেতে
থাকলেন, অনেকে চোখ বড় বড় করে আমার দিকেও তাকালেন, যেন তাদের আমি কোনো
শিশুকে ভুলভাল প্রশ্ন করছি। এটাই বাস্তবতা, অথচ আমি যদি তাদের বলতাম, কোন
কোচিং এ পড়? তারা ঠিকই একটা নাম বলে দিত। যদি বলতাম, বর্তমান বিশ্বের
জনপ্রিয় পপ তারকা কে? তবে জবাবটা যে একদম সঠিক দিত, তা আমি প্রত্যক্ষ
করেছি। যদি বই থেকে কোনো প্রশ্ন ধরতাম, তবেও উত্তর সঠিক আসতো, কেননা
তাদের সেটা বোঝা লাগে না, মুখস্থই আছে। কিন্তু বাংলাদেশের ইতিহাস, সোনালি
পাতাগুলো আজ মুছে যাচ্ছে। এটার পেছনে অবশ্যই কোচিং এর একটা দোষ আছেই।
সারাদিন ধরে একজন শিক্ষার্থী কোচিং করছে, সে বাসায় এসে মুক্তিযুদ্ধের বই
পড়ে না। সে মোবাইল হাতে নিয়ে গান বাজায়, কখনও ফেসবুক কিংবা অন্যকিছু। তবে
ব্যতিক্রম আছেই, যদিও সেটা খুবই কম। অন্তত এখনো আমার চোখে ধরা দেয় নি।

(৪)

অনেক শিক্ষার্থী আছে এমন, স্কুলে কখনও কথা না বলে থাকতে পারে না। শিক্ষক
পড়াচ্ছেন, আর সে ডিস্টার্ব করেই যাচ্ছে। কিন্তু তাকে শাসন করার অধিকার
শিক্ষকের কাছ থেকে কেড়ে নেয়া হয়েছে। আমরা মানি, কিছুকিছু শিক্ষক ছাত্রকে
খুব নির্যাতন করেন। কিন্তু আপনারা কি ভেবে দেখেছেন, শাসনের অভাবে
ছাত্র-ছাত্রীরা বেয়াড়া হয়ে যাচ্ছে? এছাড়া ডিস্টার্বের ফলে স্কুলে
পড়াশুনার পরিবেশ শুধু নষ্টই হয় নি, বরং নোংরাও হয়েছে। যদি আজ শিক্ষকদের
শাসনের বিধান থাকতো, তবে হয়তো অনেক শিক্ষার্থীই কোচিং বিমুখ হয়ে উঠত।
কেননা স্কুলে পড়ার সুন্দর একটা পরিবেশ সৃষ্টি হত। আপনারা শিক্ষককে বেধে
রাখবেন, শাসনের অধিকার দেবেন না, আর এসি রুমে বসে স্বপ্ন দেখবেন যে,
একদিন সেই শিক্ষার্থীরা সুন্দর দেশ গড়বে, তা কি কাল্পনিক নয়? যে সব
শিক্ষার্থী ক্লাসে ডিস্টার্ব করে, তারা কোচিং এ সেরূপ আচরণ করে না। কেননা
কোচিং এ শাসন হয়, প্রচুর টাকা যায়। সেটা স্কুলে চালু করলে ক্ষতি কিসের।
আমরা তো আইন করতেই পারি, অন্যায় করলে শাস্তি হবে। কিন্তু সেটা স্বাভাবিক
শাস্তি। অস্বাভাবিক যাতে না হয়, সেটা দেখা কর্তৃপক্ষের দায়িত্ব।
কর্তৃপক্ষকে সঠিকভাবে নজরদারী রেখে যদি অন্যায় করার জন্য শাস্তির বিধান
আবার চালু করা হয়, তবে আমি আশাকরি এদেশের শিক্ষার্থীরা অন্তত কোচিং বিমুখ
হবে, স্কুলে পড়াশুনা করবে, দেশ ও জাতির সত্যিকারের সম্পদে রুপান্তরিত
হবে।




ফাতিন ইসরাক,
শিশু সাংবাদিক।

ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

পার্বত্য ভূমি

পার্বত্য চট্টগ্রাম ভূমি-বিরোধ নিষ্পত্তি
কমিশন আইন, ২০০১
( ২০০১ সনের ৫৩ নং আইন )
[১৭ জুলাই, ২০০১]
পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলের ভূমি
সংক্রান্ত কতিপয় বিরোধ দ্রুত নিষ্পত্তির
লক্ষ্যে একটি কমিশন গঠন ও আ

ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

জাগো ফাউন্ডেশন নিয়ে কেন এত ক্ষোভ?



উচ্চবিত্ত পরিবারের সন্তানরা একটি সংগঠন করেছে, শিশুদের স্কুলের জন্য বা দুর্যোগে সহায়তার জন্য রাস্তায় একটি ফুল বিক্রি করছে ৫০০ থেকে ১ হাজার টাকায়; এ ধরণের ফান্ড কালেকশন ছাড়াও মূলত কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের আর্থিক সহযোগিতায় সমাজসেবা করছে, এতে আপত্তি কেন আসবে এমন প্রশ্ন ওঠাই স্বাভাবিক। তাদের স্বেচ্ছাসেবীদের মধ্যে মাদকসেবীর ছবি সামাজিক মাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে।

ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

মানুষ হিসেবে কি পার্বত্য বাঙ্গালীদের নিরাপত্তার অধিকার নাই?

প্রাচীন কাল থেকে বাংলাদেশ রূপের ভান্ডার। আর এই রূপের কেন্দ্রবিন্দু হচ্ছে পার্বত্য চট্টগ্রাম। এখানে আঁকাবাঁকা পথ দিয়ে যেখানেই যাবেন দেখবেন শুধু সবুজ আর সবুজ। পাহাড়ের উপর দাঁড়িয়ে নিচের জলধারার দিকে তাকাতেই চোখ জুড়িয়ে যাবে। পাহাড় বেয়ে স্বচ্ছ পানির ঝর্নাধারার এত সৌন্দর্য আর কোথাও পাবেন না। রাতের পার্বত্য চট্টগ্রাম আপনাকে নতুন একটি রূপের সাথে পরিচয় করিয়ে দিবে। রাতে পাহাড়ের উপর থেকে নিচ পর্যন্ত ছোট ছোট কুটির থেকে মিটিমিটি আলো দেখে আপনার মনে হবে আপনি সৌরজগতের হাজারো নক্ষত্রের মাঝে দাঁড়িয়ে আছেন।আপনারা অনেকেই জানেন পার্বত্য চট্টগ্রামের সৌন্দর্যের কথা। এই সৌন্দর্য্ পার্বত্য চট্টগ্রামের শুধুই বাহ্যিক রূপ। এর অভ্যন্তরীণ রূপ সম্পূর্ণ বিপরীত।

ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

জাগো ফাউন্ডেশন- চলছে অবৈধভাবে!



সম্প্রতি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান জাগো ফাউন্ডেশন( S–8027(48)/08) এর আইসিটি বিভাগের অনুদান প্রাপ্তির খবরে [ http://tinyurl.com/hm4h64d ] আওয়ামী লীগ নেতা কর্মীদের মধ্যে ব্যাপক অসন্তোষের জন্ম দিয়েছে। অনেকেই জাগো ফাউন্ডেশন এর প্রতিষ্ঠাতা করভি রাখসান্দ এর অতীতের আওয়ামী লীগ, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও তাঁর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় বিরোধী নানা কান্ড তুলে ধরে এই অনুদান প্রাপ্তির তীব্র নিন্দা জানিয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

ডাঃ সাহেবের ২০টি কুফুরী মতবাদ দলিলাদিসহ ঊপস্থাপন করা হলঃ-

জাকির নায়েকের 20 কুফুরী আক্বিদার দলিলঃ-
জাকির নায়েকঃ নতুন এক ফিৎনা৷ সম্রাট আকবর যেমন ইসলাম ধর্মের সাথে হিন্দু ধর্মের সংমিশ্রণ ঘটিয়ে “দ্বীন-এ-ইলাহী” প্রতিষ্ঠার চেষ্টা করেছিল। একই ভাবে জাকির নায়েক সকল

ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

প্রতারক ভন্ড জাকির নায়েক ও তার ঊম্মত হতে সারা বিশ্বের ধর্মপ্রান মুসলমানেরা মুক্তি চাই। কারন, তারাই সন্ত্রাস, তারাই জঙ্গী।

ডঃ আব্দুল বাতেন মিয়াজী

ডাঃ জাকির নায়েকের প্রসঙ্গ এলেই একদল লোক বলতে শুরু করে তিনি কুরআন, বাইবেল, গীতা সহ যেকোন ধর্ম গ্রন্থ থেকে মুখস্ত সব রেফারেন্স বলে দিতে পারেন। আমি তাদের কথার সাথে একমত। জাকির নায়েকের মেধা এবং স্মৃতি শক্তি অত্যন্ত প্রখর তাতে কোন সন্দেহ নেই। তিনি কম্পিউটারের গতিতে যে কোন রেফারেন্স নির্ভুলভাবে বলে দিতে পারেন। আমিও শুরু থেকে মনে করেছিলাম ডাঃ জাকির নায়েক কত চমৎকার ভাবেই না ইসলামের বিভিন্ন বিস্ময়ে বক্তৃতা দিচ্ছেন।

ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

কেন আমাদের নতুন চাকুরিজীবী’রা দূর্নীতিতে জড়িয়ে যাচ্ছে ?

কালো টাকাচাকুরি নামের সোনার হরিণ টি এক সময় বেকারদের পিছনে ঘুরতো, আর একবিংশ শাতাব্দিতে সেই সোনার হরিণটির পিছু ছুটছে হাজার হাজার বেকার যুবক থেকে শুরু করে বৃদ্ধা ব্যাক্তিও। আমাদের কিছু অবসর প্রাপ্ত মুরুব

ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

কে এই ডাক্তার জাকের নায়েক ?

কে এই ডাক্তার জাকের নায়েক ?

ডাঃ জাকের নায়েক ১৯৬৫ সালের ১৫ই অক্টোবর ভারতের মুম্বাই নগরীতে জন্ম গ্রহন করেন। খৃস্টান মিশনারীর সেন্ট পিটার্স হাই স্কুল হতে মেট্রিক পাশ করেন। অতঃপর কৃষ্ণ চন্দ্র রাম কলেজ (বোম্বাই) হতে এফ.এস.সি পাশ করেন৷ বোম্বে ন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজ থেকে এম.বি.বি.এস ডিগ্রি অর্জন করেন। বাল্য জিবন হতেই হিন্দুদের সথে তার ঘনিষ্টতা তাকে বাদশাহ আকবারের মত ভাবতে সাহায্য করে৷

ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

স্বঘোষিত নতুন নবী আবদুর রাজ্জাক বিন ইঊসুফ তার ঊম্মত ও শিরিক হাইপার মার্কেটের কিছু কথা৷

ঊনাকে ভাবতেই যেন আমার শরীরটা শিহরে ওঠে৷ মনটা অগ্নিস্ফুলিঙ্গের মত গর্জে ওঠে৷ এত বড় বেয়াদব জিবনেও দেখিনি৷ ঊনার আজকের আলোচনা সত্যিই লোমহর্ষক৷ আমার মনেহয় ঊনি কোন মুছলিম বিদ্ধেষীর পেতাত্মা৷ ঊনি বলেছেন, (হ

Syndicate content
glqxz9283 sfy39587p07