Skip to content

সৌদিআরব সম্পর্কে ।

ব্লগারের প্রোফাইল ছবি

১৯৩২ সালে সৌদিআরব গঠিত হয় , এরপূর্বে প্রথম বিশ্ব যুদ্ধ পর্যন্ত পবিত্র মক্কা ও মদিনা সহ এই অঞ্চলকে বলা হতো হেজাজ ।আর এই হেজাজ নিয়ন্ত্রণ করতো তৎকালিন ওসমানিয়া খিলাফত । ওসমানিয়া খিলাফত পায় পাঁচশত বছর পর্যন্ত তাদের সাম্রাজ্য টিকিয়ে রেখেছিলো , আর তামাম দুনিয়ার মুসলমান শিয়া ও সুন্নি নির্বিশেষ সকলেই এই খিলাফতকে সন্মান করতো ও অভিভাবক বলে গন্য করতো । কিন্তু ওসমানিয়া খিলাফতের শেষের দিকে আরব ভূখণ্ড সহ সমগ্র মুসলিম উম্মাহর মধ্যে ব্যপক ভাবে শিরক ও বিদায়াতে ঢুকে পরে এর ফলে অনেক দলাদলি সৃস্টি হয় এমনকি পবিত্র কাবা অঙ্গনকে চারটি ভাগে ভাগ করে দিয়ে দায়িত্ব শেষ মনে করে তৎকালিন ওসমানিয়া খিলাফত অর্থাৎ চার মাজাহাবের লোকেরা চার ইমামের নেতৃত্বে পবিত্র হজ্ব পালন করতো । এক আল্লাহয় বিশ্বাসি মুসলমানরা পবিত্র কাবা অঙ্গনেই চার ফির্কায় ভাগ হয়ে গেলো এবং ব্যপক ভাবে মাজার পূজা চলতে শুরু করো সমগ্র আরব ভূখণ্ডে । এমন এক দূর্জোগময় সময় প্রথম বিশ্বযুদ্ধে ব্রিটিশদের চক্রান্তে ওসমানিয়া খিলাফতের পতন হয় আর মুসলমানরা বিশ্বে আভিভাবক হীন হয়ে পরে । এর পূর্বেই আরব অঞ্চলে মুহাম্মদ ইবনে আব্দুল ওহাব নামে একজন মুজাদ্দেদের আভির্বাব ঘটে । তিনি মাজার পূজা ও সকল শিরক ও বিদায়াতে বিরুদ্ধ জিহাদ ঘোসনা করেন । সমগ্র আরব উপদ্বীপ থেকে উচু উচু কবর গুলো তিনি ভেঙ্গে মাটির সাথে মিশিয়ে সমান করে দেন । এই মহান সংস্কারকের প্রত্যক্ষ সহযোগিতায় আল সৌদ নামক এক আরব নেতা শিরক বিদাত মুক্ত এবং পবিত্র কোরআন ও সুন্নাহ মোতাবেক একটি রাজ্য প্রতিস্ঠা করেন সেটাই বর্তমানের সৌদিআরব । প্রতিস্ঠার পর থেকে নানা বিধ সড়যন্ত্র মোকাবিলা করে এপর্যন্ত বর্তমান মুসলিম বিশ্বে শিরক ও বিদাত মুক্ত সহিহ ইসলাম সমগ্র মানবতার সামনে সুন্দর ভাবে তুলে ধরতে সক্ষম হয়েছে এই সৌদিআরব । তবে তাদের রাজনৈতিক কিছু দূর্বলতা থাকতে পারে কিন্তু তুলনামূলক ভাবে ওসমানিয়া খিলাফতের চেয়ে পবিত্র ইসলাম ধর্মের বিধি বিধান গুলো যথেস্ট পরিপূর্ণ ভাবে বাস্তবায়ন করে চলেছে এই রাজতন্ত্র শ্বাসিত দেশটি । বর্তমান দুনিয়ায় পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তের সমস্যা গ্রস্ত মুসলমানদের সৌদিআরবের চেয়ে বেশি সাহায্য আজ পর্যন্ত কেউ করতে পারেনি । বাংলাদেশে মানুষের জীবন মান উন্নয়নে সৌদিআরবের বিশেষ অবদান রয়েছে । তবে কিছু মূর্খ ও নিন্দুক শ্রেনির মুসলমান যারা বাস্তবতা গভীর ভাবে না বুঝেই সৌদিআরবের সমালোচনা করেন । রোহিঙ্গাদের ইস্যু নিয়ে আমি অনেক নির্বোধ বাঙ্গালীকে সৌদিআরব নিয়ে অহেতুক গালমন্দ করতে সুনেছি , অথচ বর্তমান বাংলাদেশ রোহিংগাদের সাথে কত নির্মম অচরন করছে, অপর দিকে লক্ষ্য লক্ষ্য সিরিয়ান এবং আফ্রিকান উদ্বাস্তু সৌদিআরবে আশ্রয় নিয়ে আছে বছরের পর বছর এমনকি অশংখ্য রোহিংগা বর্তমানে সৌদিআরব চাকরি করছে । ১৯৯২ সালে তৎকালিন খালেদা জিয়া সরকারের আমলে রোহিংগাদের বিশাল শ্রোতধারা সৌদি সহায়তা সফল ভাবে সমাধান করেন বেগম জিয়া ।

glqxz9283 sfy39587p07